Sunday, June 16, 2024
spot_img
Homeজাতীয়আন্দোলন নস্যাৎ করতে সরকার বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করবে: ফখরুল

আন্দোলন নস্যাৎ করতে সরকার বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করবে: ফখরুল

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, সরকারের পদত্যাগ ও তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রতিষ্ঠাসহ ১০ দফা দাবিতে আমাদের ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন শুরু হয়েছে। এই আন্দোলন দমন ও নস্যাৎ করার জন্য বিভিন্ন ধরনের কৌশল অবলম্বন করবে বর্তমান স্বৈরাচারী সরকার। সেজন্য তারা মিডিয়াতে বিভিন্ন রকমের গল্পও তৈরি করবে। তবে এসব নিয়ে আমরা বেশি মাথা ঘামাচ্ছি না। এখন আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে- জনগণকে আরও বেশি ঐক্যবদ্ধ করে এই ভয়াবহ দানব সরকারকে সরানো। এর বাইরে আমাদের কোনো চিন্তা নেই। শুক্রবার সন্ধ্যায় গণতন্ত্র মঞ্চের লিয়াজোঁ কমিটির সঙ্গে বৈঠক শেষে তিনি এসব কথা বলেন। 
মির্জা ফখরুল বলেন, এ সরকারের পতনের গণআন্দোলনকে সফলতার দিকে নিয়ে যাওয়ার জন্য গণতন্ত্র মঞ্চের সঙ্গে কর্মসূচির বিষয়ে পর্যালোচনা করেছি। এ ছাড়া পরবর্তীতে কী কর্মসূচি গ্রহণ হতে পারে সে বিষয়ে আলোচনা করেছি। যুগপৎ আন্দোলনে অংশগ্রহণকারী অন্যান্য দলের সঙ্গে অতি দ্রুত বৈঠক হবে জানিয়ে ফখরুল বলেন, আগামী ৪ঠা ফেব্রুয়ারি যে কর্মসূচি রয়েছে, সেই কর্মসূচিকে সফল করা এবং পরবর্তীকালে কী কর্মসূচি গ্রহণ করবো সেগুলো বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবো।

তিনি বলেন, ফ্যাসিস্ট আওয়ামী লীগ সরকারের বিরুদ্ধে এবং গণতন্ত্রকে উদ্ধার করার জন্য, ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠা করার জন্য এবং দেশকে সত্যিকার অর্থে কল্যাণমূলক রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে তোলার জন্য এখন পর্যন্ত যারা শহীদ হয়েছেন তাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাচ্ছি। এ ছাড়া যারা বন্দী রয়েছেন তাদের মুক্তির দাবি জানাচ্ছি।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, আমাদের এই আন্দোলনে জনগণকে শরীক হতে আমরা আহ্বান জানাচ্ছি।

সত্যিকার অর্থে গণতন্ত্রকে মুক্ত করার লক্ষ্যে আমরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে আরও বৃহত্তর ঐক্য সৃষ্টি করবো।

এ সময় গণতন্ত্র মঞ্চের নেতা মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, যুগপৎ আন্দোলনের ভিত্তির যে কর্মসূচি, তা অন্যের কাছে গ্রহণযোগ্য করে তোলার জন্য কাজ করছি। আমরা চারটি কর্মসূচি পালন করেছি। কর্মসূচিকে আরও সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই। ধীরে ধীরে এই কর্মসূচি বিজয়ের পথে নিয়ে যেতে চাই। কিভাবে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া যায় এ ব্যাপারে আমরা নীতিগত এবং কৌশলগত বিষয়ে আলোচনা করেছি। তিনি বলেন, আমাদের মূল লক্ষ্য হচ্ছে ঐক্যকে আরও দৃঢ় করা। এই ঐক্যের মধ্যে ফাটল ধরাবার জন্য বিভ্রান্ত সৃষ্টি করার জন্য শত্রুপক্ষ কাজ করে যাচ্ছে। এ ব্যাপারে সজাগ থাকা এবং ঢাকা মহানগরের মধ্যে কিভাবে তৎপরতা বাড়ানো যায় এ বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। ঢাকা মহানগরের বিএনপি যে কর্মসূচি ঘোষণা করেছে আমরা এটাকে সমর্থন জানিয়েছি। এটার মধ্য দিয়ে আমরা সে পর্যায়ে যাওয়ার চেষ্টা করবো, যাতে একটি অভ্যুত্থানের দিকে নিয়ে যেতে পারি। ৪ঠা ফেব্রুয়ারির কর্মসূচির পরে পরবর্তী ধাপে কী কর্মসূচি দিতে পারি সে বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।

বৈঠকে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সঙ্গে দলটির লিয়াঁজো কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, বরকত উল্লাহ বুলু ও মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল উপস্থিত ছিলেন।

গণতন্ত্র মঞ্চের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন জোটটির লিয়াঁজো কমিটি সদস্য জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জেএসডি) সভাপতি আ স ম রব, নাগরিক ঐক্যের সভাপতি মাহমুদুর রহমান মান্না, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি, গণ অধিকার পরিষদের সদস্য সচিব  নুরুল হক নুর, ভাসানী অনুসারী পরিষদের মহাসচিব শেখ রফিকুল ইসলাম বাবলু ও রাষ্ট্র সংস্কার আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক অ্যাডভোকেট হাসনাত কাইয়ুম।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments