Wednesday, June 12, 2024
spot_img
Homeজাতীয়’২৪ সালের নির্বাচনেও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কৌশল নেয়া হবে: রুমিন ফারহানা

’২৪ সালের নির্বাচনেও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কৌশল নেয়া হবে: রুমিন ফারহানা

রাত পোহালেই ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ (সরাইল-আশুগঞ্জ) আসনে উপনির্বাচন। একইদিন বিএনপির ছেড়ে দেয়া আরও চারটি আসনে নির্বাচন হলেও সবার চোখ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায়। ওই নির্বাচনে প্রার্থী না হয়েও আলোচনার কেন্দ্রে ছিলেন সাবেক সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার এই নির্বাচনকে বিএনপির জন্য ‘সরকারের একটি বার্তা’ হিসেবে দেখছেন অলি আহাদ তনয়া। বিএনপির এই তরুণ নেত্রী মনে করেন- আগামী ’২৪ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও সরকার একই কৌশল নিতে পারে। নানা প্রলোভন দিয়ে বিএনপি থেকে দু-একজন নেতাকে সরানোর চেষ্টা করবে। দলছুট এসব প্রার্থীকে জেতাতে সব ধরনের কৌশল নেবে সরকার। মানবজমিনকে দেয়া একান্ত সাক্ষৎকারে এসব আশঙ্কার কথা জানান রুমিন ফারহানা। 

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার উপনির্বাচন সম্পর্কে তিনি বলেন, এই নির্বাচনটি সরকারের ক্ষমতা প্রদর্শনের নির্বাচনে পরিণত হয়েছে। সরকারদলীয় প্রার্থীদের জোর করে বসিয়ে দেয়া হয়েছে। স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু অসিফ এখনো নিখোঁজ।

এই নির্বাচনটির মধ্য দিয়ে সরকার একটি পরিষ্কার বার্তা দিতে চাচ্ছে- আগামী ’২৪ সালে যে নির্বাচন হবে সেখানে তারা লোভী এবং সরকারের প্রলোভনে পা দেয়া দু-একজন নেতাকে হয়তো বিএনপি থেকে এভাবে সরানোর চেষ্টা করতে পারে। তাদেরকে জেতানোর জন্য যেকোনো ধরনের ক্ষমতা প্রয়োগ করবে। যে কোনো ধরনের চাপ দেবে। যেকোনোভাবে তাদের জিতিয়ে আনবে। মূলত যদি আর কোনো উপায় না থাকে তাহলে পুরো মাঠ খালি করে ফেলা হবে তাদের জেতানোর জন্য। তিনি আরও বলেন, আমার কর্মী-সমর্থকদের ধরপাকড় করা হয়েছে। তাদের কেউ এলাকাছাড়া, কেউ ঘরছাড়া। পুরো এলাকায় একটা ভয়ের পরিবেশ তৈরি করা হয়েছে। যেকোনোভাবেই হোক অশীতিপর সাত্তার সাহেবকে জিতিয়ে আনতে হবে।

আওয়ামী লীগের ‘আবাঞ্ছিত’ ঘোষণার বিষয়ে রুমিন ফারহানা বলেন, একটি বিষয় খুব পরিষ্কার- সরকারের পায়ের নিচে মাটি নেই। এই নির্বাচনে আমি প্রার্থী না। সরকারের লোকজন যেভাবে আমাকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করছে, আমার বিরুদ্ধে কথা বলছে, আমার বিরুদ্ধে বিষোদগার করছে তাতে বোঝা যায় সরকার ভীষণ ভীত। এলাকায় যে নেতার জনপ্রিয়তা আছে সরকার তাকে যমের মতো ভয় পায়। না হলে এই নির্বাচনে আমাকে টানার কোনো দরকার ছিল না। আমি পরিষ্কার বলেছি- এই নির্বাচনে বিএনপির কোনো প্রার্থী নেই। সুতরাং বিএনপির যারা ভোটার, বিএনপির যারা সমর্থক তাদের এই নির্বাচনে যুক্ত হওয়ার কোনো সূত্র নেই। তারা বলছে, আমি না-কি নির্বাচন প্রতিহতের ঘোষণা দিয়েছি। আমি তো প্রতিহতের ঘোষণা দেইনি।  

স্বতন্ত্র প্রার্থী আসিফের নিখোঁজের বিষয়টিকে আইনের ‘ঘাটতি’ হিসেবে উল্লেখ করেছেন সংসদে ঝড় তোলা এই সাবেক এমপি। তিনি বলেন, বাংলাদেশে ন্যূনতম যে আইনের শাসন নেই তার নিখোঁজের ঘটনাটি সেটিই প্রমাণ করে। তিনি যদি নিজে থেকে ভয়ে নিখোঁজ হয়ে যান তাহলে তাকে বের করার দায়িত্ব সরকারের। আর সরকার যদি তাকে তুলে নিয়ে যায় তাহলেও তাকে খুঁজে বের করে আইনের হাতে সোপর্দ করার দায়িত্ব সরকারের।

 বিএনপি থেকে পদত্যাগের নেপথ্যে উকিল আবদুস সাত্তারের অভিযোগ সম্পর্কে রুমিন ফারহানা বলেন, একটি আসনে কোন নেতা গুরুত্বপূর্ণ হবেন আর কোন নেতা গুরুত্বহীন হবেন সেটা নির্ভর করে তার কাজের ওপর। গত কয়েক বছর আমি এলাকায় লাগাতার কাজ করেছি। আমি উনার দশ ভাগের এক ভাগও বরাদ্দ পাইনি। কারণ আমি সংরক্ষিত আসনের মহিলা সংসদ সদস্য ছিলাম। আমার সীমিত বরাদ্দের প্রতিটি পয়সার কাজ যেন ঠিকভাবে হয় আমি দাঁড়িয়ে থেকে তদারক করেছি। আমার কাজ নিয়ে কোনোরকম কমপ্লেইন এলাকা থেকে আসেনি। সরকারি অফিসও খুঁজে বের করতে পারেনি। এলাকায় আমার নিয়মিত যোগাযোগ আছে। সংসদে আমার পারফরমেন্স কী রকম ছিল সেটা বাংলাদেশের মানুষ দেখেছে। একটা নেতা গুরুত্বপূর্ণ হয় তার কাজের মধ্যদিয়ে এবং গুরুত্বহীনও হয় কাজের মধ্যদিয়ে।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments