Wednesday, June 12, 2024
spot_img
Homeবিনোদন১৬ নারীকে চলচ্চিত্র নির্মাণ শেখাচ্ছে ‘সুলতানাস ড্রিম’

১৬ নারীকে চলচ্চিত্র নির্মাণ শেখাচ্ছে ‘সুলতানাস ড্রিম’

উদীয়মান ১৬ নারীকে নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করল সুলতানাস ড্রিমের প্রযোজনায় চলচ্চিত্র নির্মাণ কর্মশালা। কর্মশালা শেষে সেরা দুজন শিক্ষার্থী নির্মাণ করতে পারবেন ‘ব্রেকিং দ্য সাইলেন্স’ শিরোনামে স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র।  

শুক্রবার ফার্মগেটের ‘সুলতানাস ড্রিম’ কার্যালয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয় মাসব্যাপী এই কর্মশালা। সেখানে উপস্থিত ছিলেন চলচ্চিত্রকার রুবাইয়াত হোসেন, গ্যেটে ইনস্টিটিউট অব বাংলাদেশের পরিচালক ক্রিশ্টান হ্যাকেনব্রোক, চলচ্চিত্র সমালোচক ও সাংবাদিক সাদিয়া খালেদ ঋতি, মনস্তাত্ত্বিক সৈয়দা ইফফাত হোসেন, চলচ্চিত্র প্রযোজক আদনান ইমতিয়াজ আহমেদ, চলচ্চিত্র নির্মাতা তাসমিয়াহ্‌ আফরিন মৌ, মেহেদি হাসান, চৈতালী সমাদ্দার, শব্দ প্রকৌশলী নাহিদ মাসুদসহ আরো অনেকে।


কর্মশালায় অংশ নেওয়া ১৬ প্রতিযোগীরা হলেন—লাবনী আশরাফ, আতশী কর্মকার, ফাতিহা তাইরা, জাহারা নাজিফা নোভা, নুসরাত জাহান ইশাত, ফারাহ জলিল, আফ্রিদা মেহজাবীন, ফারিয়া বেগম রাইয়া, ফাজানা নূর, নেহা শামীম, ফারিয়া মানার, মনন মুনতাকা, মাহমুদা আক্তার মনিশা, প্রাচিতা অহনা আলম, তিজাইয়া থমাস এবং মো. শিহাব।  

উদ্বোধনী দিনে শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে বক্তব্য রাখছেন ‘মেহেরজান’খ্যাত নির্মাতা রুবাইয়াত হোসেন।

এই আয়োজন প্রসঙ্গে রুবাইয়াত হোসেন বলেন, ‘চলচ্চিত্র নির্মাণের সাথে আমার সর্ম্পক প্রায় এক যুগ। আমি দেখেছি দেশে নারী নির্মাতা একেবারে হাতে গোনা। চলচ্চিত্র নির্মাণে তারা বৈষম্যের শিকার। বৈষম্যের এই জায়গা থেকে বেরিয়ে আসতে এবং দেশের চলচ্চিত্রের উন্নয়নে বেশি করে নারী নির্মাতাদের অংশগ্রহণ প্রয়োজন। সে ক্ষেত্রে আমরা যারা আছি, তাদের সঙ্গে আরো মেয়েদের চলচ্চিত্র নির্মাণে এগিয়ে আসা উচিত। তার আগে দরকার মেয়েদের চলচ্চিত্র নির্মাণ শেখানো। সেই ভাবনা থেকেই আমাদের এই আয়োজন। ’ 

১৬ জন নির্মাতাকে আগামী এক মাস কর্মশালায় প্রশিক্ষণ দেবেন চিত্রনাট্যকার ফিলিপ বাহরিয়ে, বাংলাদেশের চলচ্চিত্র নির্মাতা তাসমিয়াহ্‌ আফরিন মৌ, মেহেদি হাসান, চৈতালী সমাদ্দার, চলচ্চিত্র প্রযোজক আদনান ইমতিয়াজ আহমেদ, পাকিস্তানের অভিনেত্রী ও চলচ্চিত্র নির্মাতা সিমাব গুল, পাকিস্তানের চলচ্চিত্র নির্মাতা সিয়াম সাদিক, ভারতের চলচ্চিত্র প্রযোজক ও প্রডাকশন ডিজাইনার জোনাকী ভট্টাচার্য্য, ভারতের ফিল্ম কিউরেটর মীনাক্ষি শেড্ডি, বাংলাদেশের শব্দ প্রকৌশলী নাহিদ মাসুদ, চিত্রগ্রাহক বরকত হোসেন পলাশ এবং  মনস্তাত্ত্বিক সৈয়দা ইফফাত হোসেন।

সুলতানাস ড্রিমের এই কর্মশালার সহ-আয়োজক প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান খনা টকিজ। পরিবেশকের দায়িত্বে গ্যেটে ইনস্টিটিউট অব বাংলাদেশ। এ ছাড়া নির্মিত স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রগুলো দেশব্যাপী প্রদর্শিত হবে।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments