Monday, April 15, 2024
spot_img
Homeআন্তর্জাতিকহিজাব-বিরোধী আন্দোলনে শামিলের জের, শাস্তির মুখে খোদ নেতার ভাস্তি

হিজাব-বিরোধী আন্দোলনে শামিলের জের, শাস্তির মুখে খোদ নেতার ভাস্তি

হিজাব বিরোধী আন্দোলনে অগ্নিগর্ভ ইরান। যে করো হোক বিদ্রোহ দমনে মরিয়া সেদেশের প্রশাসন। এই পরিস্থিতিতে তেহরানের এক শীর্ষনেতা ও ধর্মীয় স্কলারের ভাস্তি ফরিদা মোরাদখানি, যিনি বরাবরই ইরানের সরকারের কড়া সমালোচক, তাকে তিন বছরের সাজা দেয়া হল।

গত নভেম্বরেই তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ, হিজাব বিরোধী আন্দোলনকে সমর্থন জানিয়ে তিনি তেহরানের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করতে বহির্বিশ্বকে আহ্বান জানিয়েছিলেন। অবশেষে তাকে সাজা দেয়া হল। ফরিদার আইনজীবী মোহাম্মদ হোসেন আগাসি জানিয়েছেন, প্রথমে তার মক্কেলকে ১৫ বছরের সাজা দেয়া হয়েছিল। কিন্তু একটি আবেদন জমা পড়ার পরে বিচারক সিদ্ধান্ত বদলে ওই সাজা ৩ বছরের করা হয়। জানা গিয়েছে, তিনি তার চাচাকে মুসোলিনি ও হিটলারের সঙ্গে তুলনা করেছিলেন। কড়া সমালোচনা করেছিলেন সেদেশের সরকারের। এরপর থেকেই মাথাচাড়া দেয় বিতর্ক। গ্রেপ্তার করা হয় তাকে। অবশেষে দেয়া হল সাজা।

প্রসঙ্গত, হিজাব বিরোধী আন্দোলন থামিয়ে দিতে একাধিক কড়া পদক্ষেপ নিয়েছে ইরানের প্রশাসন। বিদ্রোহ দমনে কঠোর হয়েছে সরকার। ইতিমধ্যেই প্রাণ হারিয়েছেন কয়েকশো মানুষ। এ পরিস্থিতিতে ৫ জনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে ইরানের আদালত। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ, এক আধা সেনাকর্মীকে খুনের। মামলায় মোট ১৩ জন পুরুষ ও তিন নাবালকের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছিল। সকলকেই সাজা দেয়া হয়েছে।

গত কয়েক মাস ধরেই ইরান উত্তাল আন্দোলনে। ১৬ সেপ্টেম্বর ইরানের নীতি পুলিশের মারে মৃত্যু হয় তরুণী মাহসা আমিনির। তারপর থেকেই দেশজুড়ে চলছে প্রতিবাদী মিছিল। স্বৈরশাসকের বিরোধিতায় ইটালির বুকে তৈরি হওয়া ‘বেলা চাও’ গানটি গেয়ে ইরানের রাস্তায় প্রতিবাদ জানাচ্ছেন আরব দুনিয়ার মেয়েরা। হিজাব বিরোধী সেই আন্দোলনে শামিল পুরুষদের একাংশও। তাদের কণ্ঠেও ‘বেলা চাও’। প্রতিবাদকে রুখতে ব্যর্থ ইরানের প্রশাসন। এই পরিস্থিতিতে ফরিদা মোরাদখানিকে তিন বছরের সাজা দিল সেদেশের আদালত। সূত্র: এপি।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments