Tuesday, May 17, 2022
spot_img
Homeনির্বাচিত কলামস্বাগত ২০২২: ক্ষত কাটিয়ে নবোদ্যমে চলার বছর হোক

স্বাগত ২০২২: ক্ষত কাটিয়ে নবোদ্যমে চলার বছর হোক

আজ ২০২২ সালের প্রথম দিন। অসীমের পানে মহাকালের যে যাত্রা, সেখানে সূচিত হলো আরেকটি মাইলফলক। এই যে মহাকালের যাত্রা, সেখানে একেকটি বছর আসে নতুন উদ্দীপনা ও প্রেরণা নিয়ে। আমরা মুছে ফেলি গত হয়ে যাওয়া বছরের গ্লানি, উৎসাহ খুঁজে পাই সুখকর ঘটনাগুলো থেকে, তারপর এগিয়ে যাই অগ্রগতির দিকে।

কেমন কেটেছে আমাদের বিদায়ী বছরটি? ২০২১ সাল ছিল আমাদের জাতীয় জীবনে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বছর। আমরা স্বাধীনতা ও বিজয়ের ৫০ বছর তথা সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করেছি ২০২১ সালে।

করোনা মহামারির কারণে ২০২০ সালের মতো ২০২১ সালেরও দীর্ঘ সময় একটানা ছুটি তথা ‘লকডাউন’ থাকার কারণে অফিস-আদালত, কলকারখানা, ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ছিল। এর ফলে বন্ধ হয়ে গেছে অনেকের আয়ের পথ। বেকার হয়ে পড়েছেন বহু মানুষ। করোনার কারণে সবচেয়ে বেশি সময় বন্ধ ছিল দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। সঙ্গত কারণেই সবচেয়ে বেশি ক্ষতিকর প্রভাব পড়েছে শিক্ষা খাতে।

তবে আশার কথা, দেশে করোনার সংক্রমণ অনেকটাই কমে আসায় পরিস্থিতি প্রায় স্বাভাবিক হয়ে এসেছে, যদিও করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রনের প্রাদুর্ভাবে নতুন করে আশঙ্কার সৃষ্টি হয়েছে। নতুন বছরে দেশের সিংহভাগ মানুষকে টিকার আওতায় আনার মাধ্যমে আমাদের এ পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে হবে।

বিদায়ি বছরটি ছিল এক কথায় প্রিয়জন হারানোর বছর। করোনা সংক্রমণে অথবা করোনাজনিত প্রভাবে অনেক বিশিষ্টজনকে হারিয়েছি আমরা। তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য-জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম, কথাসাহিত্যিক হাসান আজিজুল হক ও রাবেয়া খাতুন, প্রখ্যাত ছড়াকার ও সাংবাদিক রফিকুল হক দাদুভাই, শহিদজায়া বেগম মুশতারী শফি, প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম, সাবেক প্রধানমন্ত্রী মওদুদ আহমদ, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্নর খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদ, বিশিষ্ট সাংবাদিক রিয়াজ উদ্দিন ও হাসান শাহরিয়ার, অধ্যাপক ড. তারেক শামসুর রেহমান, কণ্ঠশিল্পী ফকির আলমগীর, ইন্দ্রমোহন রাজবংশী ও মিতা হক, এক সময়ের জনপ্রিয় অভিনেত্রী সারাহ বেগম কবরী, অভিনেতা এটিএম শামসুজ্জামান ও ইনামুল হক। এছাড়াও আমরা হারিয়েছি আরও অনেক বিশিষ্টজনকে। তাদের সবার প্রতি রইল আমাদের অশেষ শ্রদ্ধা।

বিদায়ি বছরে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষি খাত অনেকটাই ঘুরে দাঁড়াতে সক্ষম হয়েছে। করোনার প্রভাবে সারাবিশ্বের অর্থনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হলেও সরকারের দ্রুত পদক্ষেপে, বিশেষ করে খাতভিত্তিক প্রণোদনা প্রদানের ফলে দেশে এর প্রভাব তুলনামূলক কম পড়েছে। বছরের শেষদিকে রেমিট্যান্সের গতি মন্থর হলেও বছরের শুরুতে রেমিট্যান্স এসেছে রেকর্ড পরিমাণে। ফলে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ রয়েছে পর্যাপ্ত। রপ্তানি খাত আবার ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করেছে।

আমরা আশা করছি, এসবের ফলে নতুন বছরে দেশের অর্থনীতি করোনার প্রভাব কাটিয়ে উঠতে সক্ষম হবে। তবে বিদায়ি বছরে বেশকিছু দুঃখজনক ঘটনা ঘটেছে, যা আমাদের মনে দাগ কেটেছে। সেগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো-যাত্রীবাহী লঞ্চে অগ্নিকাণ্ড ও বহু মানুষের মৃত্যু। এছাড়া দেশজুড়ে ইউপি নির্বাচনে সহিংসতা, সাম্প্রদায়িক সহিংসতা, বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের নেতা মহিবুল্লাহ হত্যার ঘটনাও উল্লেখযোগ্য।

আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ২০২১ সাল ছিল ঘটনাবহুল। ডোনাল্ড ট্রাম্পকে হারিয়ে আমেরিকার প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছেন জো বাইডেন। পুনরায় পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী হয়েছেন মমতা ব্যানার্জি। আফগানিস্তানে মার্কিন বাহিনীর দীর্ঘ সময়ের দখলদারিত্বের অবসান ঘটিয়ে পুনরায় ক্ষমতায় এসেছে তালেবান।

আমরা আশা করব, মানুষের অদম্য স্পৃহা ও উদ্ভাবনী শক্তির কাছে অচিরেই হার মানবে করোনাভাইরাস। পৃথিবীতে আবার ফিরে আসবে শান্তি। জনগণ, সরকার, রাজনৈতিক দল এবং বিভিন্ন ক্ষেত্রের দায়িত্বশীল ব্যক্তিরা নতুন বছরটিকে শান্তি-সমৃদ্ধময় ও তাৎপর্যপূর্ণ করে তুলবেন। সবাইকে নতুন বছরের শুভেচ্ছা।

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments