Monday, November 29, 2021
spot_img
Homeজাতীয়স্বতন্ত্র প্রার্থী ও সমর্থকদের ওপর হামলার অভিযোগ, মোটরসাইকেল ভাঙচুর

স্বতন্ত্র প্রার্থী ও সমর্থকদের ওপর হামলার অভিযোগ, মোটরসাইকেল ভাঙচুর

নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার একডালা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী (আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী) ও সমর্থকদের ওপর হামলা চালিয়ে মারপিট ও মোটরসাইকেল ভাঙচুর করার অভিযোগ উঠেছে নৌকা প্রার্থী ও সমর্থকদের বিরুদ্ধে। তাদের মারধরে স্বতন্ত্র প্রার্থীর অন্তত ২০ জন সমর্থক আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে ৮-১০ জনকে নওগাঁ ও আদমদীঘি হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছে। এ সময় হামলাকারীরা স্বতন্ত্র প্রার্থীর ব্যক্তিগত অফিসের সামনে থাকা ১৪ টি মোটরসাইকেলও ভাঙচুর করেছে বলেও অভিযোগ করছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. রুহুল আমিন।

গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় রাণীণগর উপজেলার একডালা ইউপির আবাদপুকুর বাজারের চারমাথায় এ হামলা, মারপিট ও ভাঙচুরের ঘটনাটি ঘটে। এই ঘটনার পর থেকে ওই এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। রাতে যেকোনো প্রকার অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

একডালা ইউপির স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী (আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী) মো. রুহুল আমিন বলেন, ‘আমি ও আমার সমর্থকদের নিয়ে এলাকায় প্রচারণা শেষ করে ব্যক্তিগত অফিসে আসার সাথে সাথে নৌকা প্রার্থী ও সমর্থকরা আমাকেসহ আমার লোকজনের ওপর অতর্কিতভাবে হামলা চালিয়ে রড়, লাঠি ও জিআই পাইপ দিয়ে মারধর শুরু করেন। এ সময় আমার অফিসের সামনে থাকা ১৪টি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করেছে এবং তাদের মারধরে আমার ২০ জন লোক আহত হয়েছেন। আমি এ ঘটনায় থানায় এজাহার দায়ের করেছি।’ এ ঘটনায় সুষ্ঠ বিচারের দাবি জানিয়েছেন তিনি।

এদিকে সব অভিযোগ অস্বীকার করে একডালা ইউপির নৌকা প্রার্থী শাহজাহান আলী বলেন, ‘আমি ও আমার লোকজন শিয়ালা থেকে নির্বাচনী প্রচারণা শেষ করে আবাদপুকুর চারমাথা দিয়ে গুয়াতা গ্রামে প্রচারণা চালানোর উদ্দেশে যাচ্ছিলাম। এ সময় স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকরা আমাদের বাধা প্রদান করে এবং আমার লোকজনকে দেখে বিভিন্ন বাজে মন্তব্য করছিলেন। সেখানে অঘটন ঘটতে পারে এমন আশঙ্কায় আমি আর প্রচরাণায় না গিয়ে আমার অফিসের দিকে ফিরে যাই। এমতাবস্থায় স্বতন্ত্র প্রার্থী সমর্থকরা আমার লোকজনের সঙ্গে তর্কে জড়ায় এবং একজেনর গাড়িতে লাথি মাড়লে কয়েকজনের মধ্যে মারপিটের ঘটনা ঘটে। এতে আমার ৮-১০ জন লোক আহত হয়। এ সময় আমার লোকজনের ৩-৪ টি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করে স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকরা।’ এ ছাড়া স্বতন্ত্র প্রার্থীর লোকজনরা নিজেরাই তাদের মোটরসাইকেল ভাঙচুর করে সেই দোষ আমার ও কর্মীদের ওপর চাপানোর চেষ্টা করছে বলে দাবি করেছেন তিনি।

রাণীনগর উপজেলায় নির্বাচন অফিসার ও রির্টানিং অফিসার মো. রেজাউল করিম বলেন, ‘ঘটনাটি জানার সাথে সাথে আমি ঊর্দ্ধতন কর্মকর্তাকে জানিয়েছি। স্বতন্ত্র প্রার্থী রুহুল আমিনের কাছ থেকে একটি অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি ঊর্দ্ধতন কর্মকর্তারা খতিয়ে দেখছেন।’

এ বিষয়ে রাণীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহিন আকন্দ বলেন, ঘটনাটি জানার সঙ্গে সঙ্গে দ্রুত সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনা হয়। একটি সুন্দর ও উৎসবমুখর পরিবেশে নির্বাচন অনুষ্ঠিতের লক্ষে পুলিশ বাহিনী কঠোর অবস্থানে রয়েছে।

ওসি আরও বলেন, নির্বাচনকে ঘিরে যেকোনো অপ্রীতিকর ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের আইনের আওতায় আনা হবে। আবাদুপুকুরের ঘটনায় কোনো অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments