Friday, April 19, 2024
spot_img
Homeআন্তর্জাতিকস্কুলের বাইরে মুসলিম ছাত্রীকে গেরুয়া চরমপন্থীদের হয়রানি

স্কুলের বাইরে মুসলিম ছাত্রীকে গেরুয়া চরমপন্থীদের হয়রানি

ভারতে প্রতিনিয়ত হিজাবধারী নারীরা হয়রানির শিকার হচ্ছে। এর সর্বশেষ শিকার হয়েছে এক তরুণী। হিজাব পরা মুসলিম নারী শিক্ষার্থীকে লক্ষ্য করে গেরুয়া রুমালধারী ছেলেদের একটি দলের হয়রানির ভিডিও অনলাইনে ভাইরাল হয়েছে। এ ভিডিও অনেককে চরমপন্থীদের কর্মের নিন্দা করতে প্ররোচিত করেছে।
ভিডিওতে হিজাব পরা একটি মেয়েকে তার বাইকে কর্ণাটকের পিইএস কলেজে গিয়ে নামতে দেখা যায়। তারপর গেরুয়া স্কার্ফ পরা একদল ছেলে তাকে উদ্দেশ্য করে কটূক্তি করে। কলেজ প্রশাসন মেয়েটিকে দল থেকে দূরে সরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে, কারণ তারা তার দিকে সেøাগান ও গালি ছুঁড়তে থাকে। মেয়েটি এক পর্যায়ে ‘আল্লাহু আকবর’ বলে চিৎকার করে ওঠে।
সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে, ভারতের কর্ণাটকে স্কুলে হিজাব পরা মুসলিম ছাত্ররা একটি বিতর্কিত বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে, যেখানে বেশ কয়েকটি স্কুল হিজাব পরা মেয়েদের ক্লাসরুম বা কলেজ ক্যাম্পাসে প্রবেশ করতে অস্বীকার করে।
ভারতের জম্মু ও কাশ্মীর পিপলস ডেমোক্রেটিক পার্টির (জেকেপিডিপি) সভাপতি মেহবুবা মুফতি হামলার নিন্দা করেছেন, ঘটনাটিকে ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) এর ইসলামবিরোধী বক্তব্যের জন্য দায়ী করেছেন।
‘এ ধরনের ঘটনাগুলোকে বিচ্ছিন্নভাবে দেখা উচিত নয়, কারণ বিজেপি আশা করে যে, তারা ইউপি [উত্তরপ্রদেশ] নির্বাচনে মেরুকরণে সহায়তা করবে’ তিনি বলেন।
সাংবাদিক নীলাঞ্জনা রায় উল্লেখ করেছেন যে, স্কুলে মেয়েদের হিজাব পরা নিয়ে বিতর্ক কেবল ধর্মীয় পোশাকের চেয়ে বেশি নয়, অন্যরা ঘটনাটিকে ‘লজ্জাজনক’ বলে অভিহিত করেছেন।
‘এটি কখনই হিজাবের বিষয়ে ছিল না – এটি সর্বদা মুসলমানদের, প্রথমে পুরুষদের, এখন সম্প্রদায়ের মহিলাদের পেছনে লেলিয়ে দেয়ার বিষয়ে ছিল’ তিনি বলেন।
গেরুয়া, হিন্দুধর্মে সম্মানিত একটি রঙ, বিজেপির প্রতীক হয়ে উঠেছে, যাকে কখনও কখনও ‘গেরুয়া পার্টি’ হিসাবে উল্লেখ করা হয়। ২০১৪ সালে তিনি প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর থেকে বিজেপি নেতা নরেন্দ্র মোদি তার ভিত্তিকে সুসংহত করতে ইসলামবিরোধী বক্তব্য ব্যবহার করে হিন্দু ও মুসলমানদের মধ্যে বিভাজন ঘটিয়েছেন।
৩ দিনের জন্য সমস্ত স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা
এদিকে হিজাব বিতর্ক নিয়ে উত্তেজনা থামাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে কলেজ কর্তৃপক্ষদের। মঙ্গলবার থেকে তিন দিন রাজ্যের সমস্ত স্কুল-কলেজ বন্ধের নির্দেশ দিয়েছেন কর্ণাটকের মুখ্যমন্ত্রী বাসবরাজ বোম্মাই। বিষয়টি নিয়ে কর্নাটক হাইকোর্টে একটি মামলাও হয়েছে। সেই শুনানি হয় মঙ্গলবার। বিচারপতি বুধবারও শুনানির নির্দেশ দিয়েছেন।
আদালতে শুনানি শুরুর ঠিক আগে মুখ্যমন্ত্রী টুইট করে স্কুল-কলেজ তিন দিন বন্ধের নির্দেশ দেন। সেই টুইটে তিনি স্কুল ও কলেজ পডুয়াদের শান্তি বজায় রাখার জন্য আবেদন করেন। সূত্র : দ্য ফ্রাইডে টাইমস, আনন্দবাজার পত্রিকা।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments