রাজশাহী বিভাগীয় সাইবার ট্রাইব্যুনালে এক আসামির এক বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে আদালতের বিচারক মো. জিয়াউর রহমান এ রায় দেন।

সাজাপ্রাপ্ত আসামির নাম ডা. মুন্সি নজরুল ইসলাম সুজন। তিনি চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক। রায় ঘোষণার সময় তিনি পলাতক ছিলেন।

উল্লেখ্য দণ্ডপ্রাপ্ত সুজনের বাড়ি চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার আজাইপুর আরামবাগ এলাকায়।

রাজশাহী বিভাগীয় সাইবার ট্রাইব্যুনালের পিপি অ্যাডভোকেট ইসমত আরা বেগম জানান, ২০১৫ সালের ৩০ জুন আসামি মুন্সি নজরুল ইসলাম সুজন তার ফেসবুক আইডি থেকে চাঁপাইনবাবগঞ্জের পৌর এলাকার পাঠানপাড়া মহল্লার মো. মাহফুজুর রহমান রেন্টু এবং তার  মেয়েকে নিয়ে কুরুচিপূর্ণ ও অশ্লীল কটূক্তি করেন। এর আগে সুজন ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করেন রেন্টুর কাছ থেকে। ওই চাঁদা না দেওয়ায়  সুজন তার তৈরি করা ভুয়া একটি ফেসবুক আইডিতে রেন্টু এবং তার মেয়েকে নিয়ে কটূক্তি করেন।

এ ঘটনায় মাহফুজুজুর রহমান রেন্টু ২০১৫ সালের ৪ জুলাই তথ্য প্রযুক্তি অপরাধ আইনে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পুলিশ মামলাটির চার্জশিট দেন।

পরবর্তীতে রাজশাহীর নবগঠিত বিভাগীয় সাইবার ট্রাইব্যুনালে বিচারের জন্য নথিভুক্ত হয়। মামলায় ১১ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে ডা. মুন্সি নজরুল ইসলাম সুজনকে এক বছরে কারাদণ্ড প্রদান  করেন আদালতের বিচারক জিয়াউর রহমান।

উল্লেখ্য, গত জুলাইতে রাজশাহী বিভাগীয় সাইবার ক্রাইম ট্রাইব্যুনাল আদালত গঠিত হওয়ার পর এই প্রথম তথ্য প্রযুক্তি ও সাইবার অপরাধে কোনো মামলার রায় দেওয়া হলো।

English