Sunday, March 3, 2024
spot_img
Homeআন্তর্জাতিকশান্ত থাকতে বলেছে ইউক্রেন, দূতাবাস খালির পক্ষে যুক্তরাষ্ট্র

শান্ত থাকতে বলেছে ইউক্রেন, দূতাবাস খালির পক্ষে যুক্তরাষ্ট্র

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন বলেছেন, ইউক্রেনে রাশিয়ার সামরিক আগ্রাসনের ‘আসন্ন’ হুমকি কিয়েভে মার্কিন দূতাবাস খালি করার ন্যায্যতা দেয়।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট যুক্তরাষ্ট্রকে শান্ত হওয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, ‘এই মুহূর্তে জনগণের সবচেয়ে বড় শত্রু হলো আতঙ্ক’। তাঁর সেই মন্তবের পরই মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কথা বললেন।

ব্লিঙ্কেন আরো বলেছেন, সামরিক পদক্ষেপের ঝুঁকি যথেষ্ট বেশি এবং হুমকি যথেষ্ট আসন্ন।

সে কারণে সরে যাওয়াটাই বুদ্ধিমানের কাজ হবে।

এদিকে এক ডজনের বেশি দেশ নিজেদের নাগরিকদের ইউক্রেন ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছে। ইউক্রেন সীমান্তে এক লাখের বেশি সৈন্য মোতায়েন রাখার জেরে সৃষ্ট উত্তেজনার মধ্যে দেশগুলো এ পদক্ষেপ নিচ্ছে। যদিও মস্কো বরাবরই দাবি করে আসছে, ইউক্রেনে আক্রমণ চালানোর কোনো পরিকল্পনা তাদের নেই।

ক্রেমলিনের পররাষ্ট্রনীতি বিষয়ক জ্যেষ্ঠ উপদেষ্টা ইউরি উশকভ হামলার ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্রের আশঙ্কা খারিজ করে দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, (যুক্তরাষ্ট্রের) মৃগী রোগ চরমে উঠেছে।

শনিবার কিয়েভ থেকে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসের বেশিরভাগ কর্মীকে সরিয়ে নেওয়ার মার্কিন সিদ্ধান্তের পর কানাডা এবং অস্ট্রেলিয়া একই রকম পদক্ষেপ নেয়।
ইউক্রেনে অস্ট্রেলিয়ার কিয়েভ দূতাবাস বন্ধের ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। স্থানীয় সময় রবিবার এক বিবৃতেতে বলা হয়েছে, কিয়েভের দূতাবাস পশ্চিম ইউক্রেনের লভভ-এ স্থানান্তর করা হবে। ফলে চারটি দেশেরই দূতাবাসের কার্যক্রম লভভ থেকে পরিচালনা করা হবে। যদিও ব্রিটিশ রাষ্ট্রদূত বলেছেন, তিনি মূল দলের সঙ্গে ইউক্রেনের রাজধানীতেই থাকবেন।
 
রুশ হামলার আশঙ্কায় অস্ট্রেলিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী মরিস পাইনে তাঁর দেশের নাগরিকদের অবিলম্বে ইউক্রেন ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছেন। অল্প সময়ের ব্যবধানে যেকোনো সময় পরিস্থিতি বদলে যেতে পারে বলেও উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন তিনি।

যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডাসহ বিশ্বের বেশ কয়েকটি দেশ এরই মধ্যে দূতাবাস সরিয়ে নেওয়ার পাশাপাশি নিজেদের নাগরিকদের ইউক্রেন ত্যাগ করার নির্দেশনা দিয়েছে। সেই তালিকায় অস্ট্রেলিয়া এবং আরব দেশগুলো যুক্ত হয়েছে।  

সূত্র: বিবিসি।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments