Saturday, July 20, 2024
spot_img
Homeজাতীয়রোহিঙ্গা সঙ্কটের শেকড় মিয়ানমারেই নিহিত: ডেরেক শোলে

রোহিঙ্গা সঙ্কটের শেকড় মিয়ানমারেই নিহিত: ডেরেক শোলে

রোহিঙ্গা শরণার্থীদের সহযোগিতা অব্যাহত রাখার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্থনি ব্লিঙ্কেনের উপদেষ্টা ডেরেক শোলে।  

তিনি বলেছেন, রোহিঙ্গা শরণার্থীদের আশ্রয়দাতা হিসাবে বাংলাদেশকে সহায়তার পাশাপাশি আমরা প্রতিনিয়ত চেষ্টা করছি এ সঙ্কটের গোড়ার কারণ নিয়ে কাজ করতে, যা মিয়ানমারের ভেতরেই নিহিত। 

বুধবার ঢাকায় পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকের পর এক ব্রিফিংয়ে তিনি এসব কথা বলেন। 

ডেরেক শেলে বলেন, গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল এ অঞ্চলে বাংলাদেশ যা করে যাচ্ছে সেটা, বিশেষ করে রোহিঙ্গাদের ক্ষেত্রে। আমরা জানি, মিয়ামনারের ১০ লাখের বেশি শরণার্থীকে বাংলাদেশ আশ্রয় দিয়েছে। 

দুদিনের সফরে মঙ্গলবার ঢাকায় এসেছেন ব্লিঙ্কেনের উপদেষ্টা ডেরেক শোলে। সকালে পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেনের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করেন তিনি। 

এরপর তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাত করেন। পরে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেনের সঙ্গে বৈঠক হয় মার্কিন প্রতিনিধি দলের। 

মোমেনের সঙ্গে যৌথ ব্রিফিংয়ে এসে রোহিঙ্গা সঙ্কট এবং দুদেশের সম্পর্কের বিভিন্ন দিক নিয়ে কথা বলেন ডেরেক শোলে। 

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ‘খুব ভালো’ বৈঠক হয়েছে জানিয়ে ডেরেক শোলে বলেন, বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্কের ওপর যুক্তরাষ্ট্র যে গুরুত্ব দেয়, সে কারণেই আমরা আজ এখানে। রাজনৈতিকভাবে, নিরাপত্তার পাশাপাশি অর্থনৈতিকভাবে আমাদের দুই দেশের ক্রমবর্ধমান সম্পর্কের ওপর আমরা কতটা গুরুত্ব দিই, এই সফর তারই প্রতীক। 

যৌথ ব্রিফিংয়ে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্থনি ব্লিংকেনের উপদেষ্টা ডেরেক শোলে এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন
দুদেশের এই সম্পর্ককে আরও এগিয়ে নেওয়ার আশা প্রকাশ করেন শোলে। বলেন, আমাদের ভবিষ্যৎ নিয়ে আমরা আশাবাদী। এটা ৫১ বছরের শক্তিশালী অংশীদারিত্ব এবং আগামী ৫১ বছর এবং তার পরবর্তী সময়ের দিকে আমরা তাকিয়ে আছি। 

ডেরেক শোলের আগে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোমেন বলেন, উনি এসেছেন আমাদের দু’দেশের সম্পর্ককে আরও ভালো করার জন্য, শক্তিশালী করার জন্যে। 

তিনি বলেন, গত ৫০ বছরে আমাদের সম্পর্ক ভালো। কিন্তু এই সম্পর্কে আমরা আরও সামনে নিয়ে যেতে চাই, সলিডিফাই করতে চাই।  যুক্তরাষ্ট্র আমাদের সবচেয়ে বড় ইনভেস্টর। তারা সিঙ্গেল কান্ট্রি আমাদের গার্মেন্টেসের…., তারা প্রায় ৯ বিলিয়ন ডলারের নেয়। আমরা এটা থেকে আরও উপরে যেতে চাই।

বাংলাদেশে নতুন গড়ে তোলা একশ বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলে বিনিয়োগের জন্যও যুক্তরাষ্ট্রকে আহ্বান জানানোর কথা বলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। 

RELATED ARTICLES
- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments