Monday, May 27, 2024
spot_img
Homeজাতীয়যুগপৎ আন্দোলন সক্রিয় করার চিন্তা

যুগপৎ আন্দোলন সক্রিয় করার চিন্তা

সমমনাদের সঙ্গে বিএনপি’র বৈঠক

সরকার পতনের একদফা দাবি আদায়ে নতুন কর্মসূচি নিয়ে যুগপৎ আন্দোলনকে আবারো সক্রিয় করতে চাচ্ছে বিএনপিসহ সমমনা দল ও জোটগুলো। আগামী ৫ থেকে ৭ দিনের মধ্যে নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করার কথা রয়েছে। তবে এই কর্মসূচি ঘোষণার জন্য সুনির্দিষ্ট করে কোনো দিন ও তারিখ এখনো  চূড়ান্ত হয়নি। প্রাথমিকভাবে যুগপৎ আন্দোলনের জোট ও দলগুলোর কাছে কর্মসূচির বিষয়ে তাদের মতামত চেয়েছে বিএনপি। আগামী দুই থেকে তিন দিনের মধ্যে তারা  লিখিত আকারে কর্মসূচির বিষয়ে তাদের সিদ্ধান্ত বিএনপি’র কাছে জমা দিবে। এরপরে আবারো বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। পরে সেই কর্মসূচিগুলো নিয়ে বিএনপি’র স্থায়ী কমিটির বৈঠকে চুলচেরা বিশ্লেষণ করা হবে। তারপরে চূড়ান্ত কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।  তবে কর্মসূচি চূড়ান্ত করা নিয়ে সমমনা দল ও জোটগুলোর মধ্যে বিরোধ দেখা দিয়েছে বলে জানা গেছে। সূত্র জানায়, গত ৭ই জানুয়ারির আগে বিরোধী দলের কর্মসূচির বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হতো বিএনপি’র স্থায়ী কমিটির বৈঠকে।

কিংবা বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান এককভাবে সিদ্ধান্ত নিতেন। এই কর্মসূচি বাস্তবায়নে এবং সফল করা নিয়ে যুগপৎ আন্দোলনের দল ও জোটগুলোকে অনেক চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হতে হতো। এজন্য তারা বিএনপি’র কাছে প্রস্তাবনা দিয়েছে যে, সমমনা দল ও জোটগুলোর সঙ্গে আলোচনা করেই চূড়ান্ত কর্মসূচি ঘোষণা করতে হবে। তবে এবিষয়ে বিএনপি এখনো কোনো সিদ্ধান্ত তাদেরকে জানায়নি। জোটের এক শীর্ষ নেতা মানবজমিনকে বলেন, যুগপৎ আন্দোলনের মুভমেন্টগুলো হতে হবে গণতান্ত্রিক এবং মূল সিদ্ধান্তগুলো লিয়াজোঁ কমিটিতে হবে। কারণ এককভাবে সিদ্ধান্ত নেয়ার জন্য ৭ই জানুয়ারির আগে অনেক কর্মসূচি সঠিকভাবে বাস্তবায়ন হয়নি।

ওদিকে রোববার রাজধানীর গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে চলমান আন্দোলন এবং জনগণের আকাঙ্ক্ষা বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, একটি বৈষম্যহীন গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র এবং সমাজ বিনির্মাণের লক্ষ্যেই চলমান আন্দোলন এবং জনগণের এই  আকাঙ্ক্ষা বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত বিএনপি’র আন্দোলন অব্যাহত থাকবে। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর আবারো রাজপথের আন্দোলনে ফিরতে চাচ্ছে বিএনপি। এরই অংশ হিসেবে নির্বাচনের পর আবারো সমমনা দল ও জোটগুলোর সঙ্গে বৈঠক শুরু করেছে দলটি। গতকাল বিকাল সাড়ে ৩টায় ১২ দলীয় জোটের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে বৈঠক করেছেন বিএনপি’র লিয়াজোঁ কমিটির সদস্যরা। এরপর এলডিপি’র নেতৃবৃন্দের সঙ্গে বৈঠক করেছে দলটি। আজও সমমনা দল ও জোটগুলোর সঙ্গে বিএনপি’র লিয়াজোঁ কমিটি বৈঠক করবেন বলে জানা গেছে। সূত্র জানায়, বৈঠকে যুগপৎ আন্দোলন শুরুর বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। তবে এখনো সুনির্দিষ্ট কোনো কর্মসূচি নির্ধারিত হয়নি। বলা হয়েছে যে, এখন আন্দোলন যুগপৎভাবে হবে।

ভবিষ্যতে একক প্ল্যাটফরমেও কর্মসূচি করার চিন্তা রয়েছে। এ ছাড়া বৈঠকে দেশের বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি, সীমান্ত হত্যাকাণ্ড, দ্রব্যমূল্য এবং উপজেলা নির্বাচনের বিষয়ে আলোচনা হয়েছে বলেও সূত্রটি জানায়। জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) চেয়ারম্যান মোস্তফা জামাল হায়দার মানবজমিনকে বলেন, অচিরেই ঐক্যবদ্ধভাবে কর্মসূচি দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। এসব কর্মসূচি যুগপৎভাবে হবে। তবে সুনির্দিষ্ট কোনো কর্মসূচি এখনো ঠিক হয়নি।  বাংলাদেশ জাতীয় দলের চেয়ারম্যান সৈয়দ এহসানুল হুদা মানবজমিনকে বলেন, বৈঠকে নির্বাচন, অর্থনৈতিক এবং রাজনৈতিক পরিস্থিতিসহ ভবিষ্যৎ করণীয় বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। আর আগামী দিনে যুগপৎভাবে কর্মসূচির বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। তবে কর্মসূচি এখনো ঠিক হয়নি। খুব শিগগিরই আবারো বসে কর্মসূচি চূড়ান্ত করা হবে।  এলডিপি ও ১২ দলীয় জোটের সঙ্গে বৈঠকে বিএনপি’র স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, বেগম সেলিমা রহমান এবং ভাইস চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান উপস্থিত ছিলেন।

গতকাল বিকালে এলডিপি’র নেতৃবৃন্দের সঙ্গে বৈঠক করেছেন বিএনপি’র লিয়াজোঁ কমিটির সদস্যরা। এতে উপস্থিত ছিলেন এলডিপি’র প্রেসিডিয়াম সদস্য নূরুল আলম তালুকদার, ড. নেয়ামূল বশির, ড. আওরঙ্গজেব বেলাল, অধ্যক্ষ কে কিউ সাকলায়েন, ভাইস প্রেসিডেন্ট মাহে আলম চৌধুরী, উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য অধ্যক্ষ মাহবুবুর রহমান এবং যুগ্ম মহাসচিব বিল্লাল হোসেন মিয়াজি। এর আগে বিকাল সাড়ে ৩টায় ১২ দলীয় জোটের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে বৈঠক করেন বিএনপি’র লিয়াজোঁ কমিটির সদস্যরা।  বৈঠকে ১২ দলীয় জোটের নেতৃবৃন্দের মধ্যে জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) চেয়ারম্যান মোস্তফা জামাল হায়দার, এলডিপি’র মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম, বাংলাদেশ জাতীয় দলের চেয়ারম্যান সৈয়দ এহসানুল হুদা, জমিয়তে ওলামায়ে ইসলামের মহাসচিব মুফতি গোলাম মুহিউদ্দিন ইকরাম, বাংলাদেশ লেবার পার্টির চেয়ারম্যান লায়ন ফারুক রহমান, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান শামসুদ্দিন পারভেজ, ইসলামী ঐক্যজোটের মহাসচিব মাওলানা আবদুল করিম, জাগপা’র সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন প্রধান, বাংলাদেশ ইসলামিক পার্টির মহাসচিব আবুল কাশেম, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির মহাসচিব আবু হানিফ।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments