Saturday, January 28, 2023
spot_img
Homeজাতীয়মামলা, ধরপাকড় তবুও রাজশাহীতে রেকর্ড গড়তে চায় বিএনপি

মামলা, ধরপাকড় তবুও রাজশাহীতে রেকর্ড গড়তে চায় বিএনপি

আগামী শনিবার রাজশাহী বিভাগীয় গণসমাবেশের অনুমতি পেয়েছে বিএনপি। বুধবার রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশের পক্ষ থেকে নগরীর ঐতিহাসিক মাদ্রাসা মাঠে ৮ শর্তে এ কর্মসূচির অনুমতি দেয়া হয়। ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে মঞ্চ তৈরির কাজ। অলিগলিতে চলছে মাইকিং। মিছিল-মিটিং ও লিফলেট বিতরণের মাধ্যমে জনসমর্থন পেতে পাড়া-মহল্লায় যাচ্ছেন দলটির নেতারা। আজ বৃহস্পতিবার থেকে শনিবার পর্যন্ত রাজশাহী বিভাগে গণপরিবহন বন্ধ থাকলেও কর্মসূচিতে কমপক্ষে ১০ লাখ মানুষের সমাগম হওয়ার কথা জানিয়েছেন বিএনপি নেতারা। যদিও সবশেষ দুসপ্তাহ থেকে গ্রেপ্তার আতঙ্কে ঘরছাড়া দলটির অনেক নেতাকর্মী।

জানা গেছে, রাজশাহীতে বিএনপি’র সবশেষ বিভাগীয় গণসমাবেশ হয় ২০১৯ সালের ২৯ শে সেপ্টেম্বর। তিন বছর পর আবারো আয়োজিত গণসমাবেশ ঘিরে বেশ উজ্জীবিত নেতাকর্মীরা। শনিবারের এ গণসমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। বিভাগীয় পর্যায়ের সবশেষ এ গণসমাবেশে বক্তব্য রাখবেন দলটির উল্লেখযোগ্য সংখ্যক স্থায়ী কমিটির সদস্য।

এ কর্মসূচি ঘিরে পুলিশের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ধরনের বাধা সৃষ্টি ও হয়রানি করার অভিযোগ দলটির নেতাদের।

বিএনপি সূত্র জানিয়েছে, গণসমাবেশ সফল করতে গত একমাস থেকে জোর প্রস্তুতি শুরু হয়। সবশেষ দুসপ্তাহে বেশি বাধার সম্মুখীন হয়েছে দলটি। গত ১৫ দিনে প্রায় ৫০টি মামলায় বিএনপি’র এক হাজার নেতাকর্মীকে আসামি করা হয়েছে। এরইমধ্যে বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও সাবেক সংসদ সদস্য নাদিম মোস্তফাসহ শতাধিক নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বিভাগের সিরাজগঞ্জ ও নাটোর জেলার সর্বোচ্চ সংখ্যক নেতাকর্মী গ্রেপ্তার হয়েছেন। বিএনপি’র উত্তরবঙ্গের দুই প্রভাবশালী নেতা ও সাবেক দুই মন্ত্রী ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু ও রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলুর বাড়ি এ দুই জেলায়। এছাড়া রাজশাহীর কয়েকটি উপজেলায় নতুনভাবে দায়ের হয়েছে নাশকতা মামলা।

এ বিষয়ে গণসমাবেশ প্রস্তুতি কমিটির প্রধান সমন্বয়ক ও বিএনপি’র রাজশাহী বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু বলেন, গণসমাবেশের অনুমতি পেয়েছি। তবে মানুষ যাতে কর্মসূচিতে আসতে না পারে, সেজন্য গাড়ি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। বিএনপি নেতাকর্মীদের বাড়ি বাড়ি যাচ্ছে পুলিশ, মিথ্যা মামলায় গ্রেপ্তারও করছে। এতে ভীতি কাজ করছে অনেকের মাঝে। তিনি বলেন, আমাদের অনেক নেতাকর্মী এলাকাছাড়া। তবে রাজশাহী বিএনপি’র ঘাঁটি। ১০ লাখ মানুষের উপস্থিতি থাকবে মহাসমাবশে। দুপায়ে হেঁটে হলেও গণসমাবেশে যোগ দেবে মানুষ। এ ব্যাপারে বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা ও সাবেক রাজশাহী সিটি মেয়র মিজানুর রহমান মিনু জানিয়েছেন, শুধু মাদ্রাসা মাঠ নয়, গোটা রাজশাহী শহর থাকবে বিএনপির দখলে। রক্ত দিয়ে হলেও সফল করব বিভাগীয় এ সমাবেশ। কর্মসূচিতে জনগণের অংশগ্রহণের মধ্যদিয়ে সরকারের বিদায় ঘণ্টা বাজানোর ডাক দেয়া হবে।

গণসমাবেশ ঘিরে বাড়তি নিরাপত্তার কথা জানিয়েছে পুলিশ। এ বিষয়ে রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিক বলেন, বাড়তি নিরাপত্তা থাকবে নগরীজুড়ে। সিসি ক্যামেরায় পর্যবেক্ষণ করা হবে পরিস্থিতি। কেউ কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটালে অবশ্যই ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। আর জেলা পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন জানান, বিএনপি নেতাকর্মীদের হয়রানির অভিযোগ সঠিক নয়। মামলায় কেউ অভিযুক্ত হলে আসামির বাসায় পুলিশ যেতেই পারে। এসপি বলেন, এটা হয়রানি নয়। তবে জেলাজুড়ে থাকবে বাড়তি নিরাপত্তা।

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments