Tuesday, July 16, 2024
spot_img
Homeবিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমঙ্গোলদের সঙ্গে সামুরাইদের টক্কর

মঙ্গোলদের সঙ্গে সামুরাইদের টক্কর

সময়টি ১২৭৪ সাল, মঙ্গোলরা প্রথমবারের মতো জাপান দখলের চেষ্টা চালাচ্ছে। সাগর পাড়ি দিয়ে জাপানের সুশিমা দ্বীপে তাদের জাহাজ ফেলেছে নোঙর, একের পর এক গ্রাম করে নিচ্ছে দখল। রাজ্যের প্রজারা মঙ্গোলদের সামনে পুরোপুরি অসহায়। সুশিমার জিটো বা জমিদার লর্ড শিমুরা এবং তার সঙ্গে থাকা বাকি সামুরাইরা মিলে মঙ্গোলদের সরাসরি যুদ্ধের ময়দানে লড়াইয়ের আহবান জানায়, যদিও মঙ্গোলরা সম্মানের তোয়াক্কা না করে অতর্কিত হামলা থেকে বোমাবাজি, সব ধরনের কায়দাই কাজে লাগিয়ে পরাস্ত করে সব সামুরাই যোদ্ধাকে।

লর্ড শিমুরাকে করা হয় রাজবন্দি। লর্ড শিমুরার ভাতিজা এবং তার প্রধান যোদ্ধা জিন সাকাইয়ের ওপর দায়িত্ব বর্তায়, মঙ্গোলদের পরাস্ত করে সুশিমা দ্বীপের স্বাধীনতা রক্ষা করার এবং পুরো জাপানকেই তাদের থেকে নিরাপদে রাখার। সমস্যা একটিই, সামুরাইদের সম্মুখ সমরের যে রীতি, সেটা মেনে কোনোভাবেই জিন একা মঙ্গোলদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে টিকতে পারবে না। তাকে নিনজাদের মতো আড়ালে থেকে অতর্কিত হামলার শরণাপন্নও হতে হবে।
নৈতিকতা ধরে রাখা আর টিকে থাকার লড়াইয়ের মধ্যকার টানাপড়েন এবং মঙ্গোলদের বিরুদ্ধে সংগ্রাম—এ দুটি জিনিস ঘিরেই সাজানো হয়েছে ‘ঘোস্ট অব সুশিমা’ গেমটি। জিন শেষ পর্যন্ত লড়াইয়ে জেতার জন্য কতটুকু সামুরাইদের রীতি বিসর্জন দেয়—সেটাই গেমারকে গেম খেলার মাধ্যমে আবিষ্কার করতে হবে। ঘোস্ট অব সুশিমা শুরুতে প্লে স্টেশনের জন্য প্রকাশিত হলেও অবশেষে পিসির জন্যও প্রকাশিত হয়েছে।থার্ড পারসন অ্যাকশন আরপিজি ঘরানার গেম ঘোস্ট অব সুশিমা।

মূল মিশনের পাশাপাশি আছে অনেক সাইড মিশন, সেগুলো খেলেও পাওয়া যাবে এক্সপেরিয়েন্স পয়েন্ট। সেসব কাজে লাগিয়ে মনের মতো জিনের নতুন সব স্কিল আনলক করতে হবে। শক্রদের পরাস্ত করার জন্য দুটি পন্থাই সমান কার্যকর, গুপ্ত হামলা অথবা সম্মুখ সমর। তবে অবশ্যই গেমারকে বুঝে নিতে হবে—কোন ক্ষেত্রে কোন উপায় বেশি কার্যকর। জিন কোনো সুপার হিরো নয়, সে চাইলেই হাজারো আঘাত সহ্য করতে পারবে না।
লড়াইয়ের সময় যত দূর সম্ভব গা বাঁচিয়েও চলতে হবে এবং চেষ্টা করতে হবে সুযোগ বুঝে আঘাত করার, না হলে জেতা সম্ভব নয়।গেমটির গ্রাফিকস অসাধারণ। প্রতিটি ফ্রেম মনে হবে বাঁধাই করা জাপানি তৈলচিত্র। গেমের মধ্যে বেশ কিছু জাপানি সংস্কৃতির জিনিসপত্র রয়েছে। যেমন—হাইকু লেখা, পশুপাখির প্রতি সম্মান প্রদর্শন বা বছাশি বাজিয়ে সুর তোলা। নির্মাতা সাকার পাঞ্চ চেষ্টা করেছে যত দূর সম্ভব জাপানি সংস্কৃতির প্রতি সম্মান দেখাতে। মঙ্গোল চরিত্রগুলোও সরাসরি ভিলেন হিসেবে না দেখিয়ে চতুর এক দখলদার বাহিনী হিসেবে তুলে ধরা হয়েছে, যারা শুধু শক্তি নয় বরং জাপানিদের পর্যবেক্ষণ করে সংগ্রহ করা জ্ঞান দিয়েও লড়াই করে।

বয়স : গেমটি শুধু প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য।

খেলতে যা যা প্রয়োজন : অন্তত কোর আই ৩ ৭১০০ বা রাইজেন ১২০০ প্রসেসর, ৮ গিগাবাইট র‌্যাম, জিটিএক্স ৯৬০ বা এএমডি ৫৫০০এক্সটি জিপিইউ এবং ৭৫ গিগাবাইট জায়গা।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments