ময়মনসিংহের হালুয়াঘাট সীমান্তে গোলাগুলিতে ভারতীয় এক চোরাকারবারি নিহতের ঘটনায় প্রশংসায় ভাসছে বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ(বিজিবি)। ঘটনাটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে মুহূর্তের মধ্যে ভাইরাল হয়। ভারতীয় চোরাকারবারিদের বিরুদ্ধে বিজিবির এই সাহসী পদক্ষেপকে ব্যাপকভাবে সাধুবাদ জানিয়েছেন নেটি দুনিয়ার বাসিন্দারা। যদিও এই ঘটনায় ভারতীয় চোরাকারবারিদের গুলিতে বিজিবির এক সদস্যও আহত হয়েছেন। সোমবার (২৮ ডিসেম্বর) দিবাগত মধ্যরাতে হালুয়াঘাট উপজেলার সূর্যপুর ডুমলিকুড়া এলাকায় একদল ভারতীয় চোরাকারবারিকে ধাওয়া দেয় সূর্যপুর বিওপি বিজিবির টহলদল। এসময় উভয়পক্ষের মধ্যে এই গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। নেটিজেনরা এই ঘটনায় বিজিবিকে অভিনন্দন জানিয়ে সীমান্তে প্রতিবেশী দেশের চোরাকারবারিদের বিরুদ্ধে আরও বেশি কঠোর হওয়ার দাবি জানিয়েছেন। বিজিবিকে সাধুবাদ জানিয়ে ফেসেবুকে শরিফ আহমেদ স্বন্দীপী লিখেছেন, ‘‘ধন্যবাদ বিজিবিকে। ন্যায্য বিচার হয়েছে। শুধু বাংলাদেশীদের দোষ দিয়ে গুলি করে মারা হতো। ভারতীয়দের জামাই আদর করে ছেড়ে দেওয়া হতো। এতে করে বাংলাদেশীদের ঘাড়ে সব দোষ পড়তো।’’ মোঃ সাইফুল ইসলাম তাসিনের মন্তব্য, ‘‘বিজিবির এই রূপটাই দেখতে চায় বাংলাদেশের মানুষ, অপরাধী কিংবা শত্রু কাউকেই কোন ছাড় নয়। সে যদি অপর প্রান্তের বিএসএফও হয় কোন ছাড় নয়, উচিত জবাব দিতে হবে।’’ আলাউদ্দিন আলো লিখেছেন, ‘‘বাংলাদেশকে টার্গেট করে সীমান্তে ফেনসিডিল মদ ইয়াবার কারখানা গড়ে তুলেছে প্রতিবেশীরা। তাদের অপকর্ম প্রতিহত করতে হবে দেশ ও জনস্বার্থে। বর্ডার গার্ডকে কঠোর হওয়া ছাড়া উপায় নাই।’’

আব্দুল বাতেন সরকার লিখেছেন, ‘‘জীবনের এই প্রথম সুন্দর একটি খুশির খবর পেলাম। আমার স্বাধীন বাংলাদেশের বিজিবি ভারতীয় চোরাকারবারিকে নিহত করার কারণে আজ আমরা অনেক আনন্দিত এবং আমাদের স্বাধীন দেশের বিজিবিকে নিয়ে আমরা অনেক গর্ববোধ করতে পারবো। এখনি সময় রুখে দাঁড়ানোর।’’ সুমন কুমার লিখেছেন, ‘‘যে কোন দেশেরই হোক চোরাকারবারি, গরুপাচারকারী, ফেনসিডিল কারবারী, চোর, বদমায়েশ, স্মাগলার- এদেরকে সরাসরি এভাবেই মারা উচিত।এরা যেকোন দেশের যুব সমাজকে ধংস করে।’’ এম আব্দুস সামাদ শিকদারের মন্তব্য, ‘‘এই ভাবে পাল্টা জবাব দিতে পারলে সীমান্তে ভারতীয় বিএসএফ আর কখনও বাংলাদেশী জনগণের বুকে গুলি করতে সাহস পাবে না।’’ মোঃ জশিম খান লিখেছেন, ‘‘আলহামদুলিল্লাহ, অবশেষে একটা সুসংবাদ শুনতে পেলাম। ভারতীয় চোরাকারবারী বিজিবির হাতে গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা গিয়েছে। এতদিন পরে বিজিবি একটা দায়িত্ব পালন করছে। আমরা ধন্যবাদ জানাই বিজিবিকে।’’

এনামুল হক লিখেছেন, ‘‘বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশী নিহত হওয়ার নিউজ পড়তে পড়তে যে ক্লান্তি জমেছিলো এক নিমিষেই সব ক্লান্তি দূর হয়ে গেল। আলহামদুলিল্লাহ।’’

রবিন সিকদার লিখেছেন, ‘‘১৮ কোটি জনগণের পক্ষ থেকে এবং বিজয়ের মাসের উপলক্ষে স্যালুট বিজিবি সদস্যদেরকে, আর যে গুলিটা করেছে তাকে রাষ্ট্রীয়ভাবে মর্যাদা করা দরকার।’’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

English