ভারতের ক্ষমতাসীন দল বিজেপির নেতা সম্বিত পাত্রের বিতর্কিত টুইটকে ‘ফ্ল্যাগ’ করায় টুইটার অফিসে হানা দিয়েছে দিল্লি পুলিশ। খবর হিন্দুস্তান টাইমসের। 

খবরে বলা হয়, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় সম্বিত পাত্রের টুইটিকে ‘ম্যানিপুলেটেড মিডিয়া’ ট্যাগ দেয় টুইটার। এর আগে এই টুইট প্রসঙ্গে কংগ্রেসের তরফে টুইটারের কাছে অভিযোগ জানিয়ে দাবি করা হয়েছিল যে বিজেপি নেতার শেয়ার করা টুলকিটটি কংগ্রেসের বলে দাবি করা হলেও সেটি মিথ্যা। এর আগে একটি সংবাদ ওয়েবসাইটের পক্ষ থেকে ফ্যাক্ট চেকের পর দাবি করা হয়েছিল, সম্বিত পাত্রের শেয়ার করা টুলকিটটি ভুয়ো।

খবরে বলা হয়, সোমবার গুরুগ্রাম ও এনসিআর-এ অবস্থিত টুইটারের দুটি অফিসে অভিযান চালাল দিল্লি পুলিশের বিশেষ সেল।

এর আগে মার্কিন নির্বাচনের সময়ে তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের টুইটগুলিকে ‘ম্যানিপুলেটেড মিডিয়া’ ট্যাগ দিয়েছিল টুইটার। যার অর্থ, সেই টুইটের বক্তব্যের সত্যতা প্রসঙ্গে সন্দেহ প্রকাশ করা হয়েছে।

‘ম্যানিপুলেটেড মিডিয়া’ ট্যাগ প্রসঙ্গে টুইটার তারে পলিসিতে জানিয়েছে, আমরা যেকোনও ভিডিয়ো, অডিয়ো, ছবিকে ম্যানিপুলেটেড মিডিয়া ট্যাগ দিতে পারি যদি সেটি ভুয়ো হয়ে থাকে বা সেই মিডিয়ার মাধ্যমে অন্য কারোর ক্ষতি হতে পারে।

এর জেরে ক্ষুব্ধ বিজেপি সরকারের নির্দেশনায় ভারতের গুরুগ্রামে অবস্থিত টুইটারের অফিসে অভিযান চালাল দিল্লি পুলিশের বিশেষ সেল। এছাড়াও দিল্লি এনসিআর এলাকায় অবস্থিত লাডো সারাইতে থাকা টুইটারের আরও একটি অফিসে অভিযান চালিয়েছে দিল্লি পুলিশ।

এর কয়েক ঘণ্টা আগেই সম্বিত পাত্রের টুইটকে ‘ম্যানিপুলেটেড মিডিয়া’ ট্যাগ দেওয়ার ঘটনায় টুইটারকে একটি নোটিশ পাঠিয়েছিল দিল্লি পুলিশ। সেই নোটিশ পাঠানোর কিছুক্ষণ পরই টুইটারের অফিসে অভিযান চালায় দিল্লি পুলিশ। 

উল্লেখ্য, এর আগে সম্বিত পাত্র সহ ৫ পাঁচ বিজেপি নেতার টুইটকে ‘ম্যানিপুলেটেড মিডিয়া’ ট্যাগ দিয়েছিল টুইটার। এরপর টুইটারকে  সেই ট্যাগ সরাতে নরেন্দ্র মোদি সরকারের পক্ষ থেকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল ।

এর আগে কেন্দ্রীয় ইলেক্ট্রনিকস এবং তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রক মাইক্রোব্লগিং সাইট টুইটারকে কড়া ভাষায় একটি নোটিশ পাঠায়। তাতে ভারতীয় রাজনীতিবিদদের করা টুলকিট টুইটে ‘ম্যানিপুলেটেড ট্যাগ’ দেওয়ায় টুইটারকে কড়া কথা শোনানো হয়েছে। কেন্দ্রের দাবি, বিজেপি নেতাদের টুইটকে ‘ম্যানিপুলেটেড ট্যাগ’ দেওয়া পক্ষপাতদুষ্ট এবং একতরফা সিদ্ধান্ত। যদিও বিতর্কিত টুলকিটের সত্যতা নিয়েও তদন্ত হচ্ছে বলে জানা গিয়েছে।

হিন্দুস্তান টাইমসের খবরে বলা হয়, কেন্দ্রীয় ইলেক্ট্রনিকস এবং তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের বক্তব্য, তদন্তাধীন কোনও বিষয়কে ইতিমধ্যে ‘ম্যানিপুলেটেড ট্যাগ’ দিয়েছে টুইটার। এর জেরে তদন্ত প্রভাবিত হতে পারে। এটি একেবারেই কাম্য নয় বলেও বলা হয়েছে কেন্দ্রের তরফে। এর জেরে টুইটারের গ্রোহণযোগ্যতা কমে যাচ্ছে বলেও অভিযোগ করা হয় কেন্দ্রের তরফে। তাই ন্যায়বিচারের স্বার্থে বিজেপি নেতাদের টুলকিট সংক্রান্ত টুইটগুলি থেকে ‘ম্যানিপুলেটেড ট্যাগ’ সরাতে বলে ভারত সরকার।

যে টুইট নিয়ে এত বিতর্ক

টুলকিট সংক্রান্ত একটি টুইট করে সম্প্রতি কংগ্রেসকে চাপে ফেলতে চেয়েছিল বিজেপি। সেই লক্ষ্যে বিজেপির মুখ্য মুখপাত্র সম্বিত পাত্র কয়েকদিন আগে একটি টুইট করে দাবি করেন যে কংগ্রেস প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সম্মানহানীর লক্ষ্যে করোনা ভাইরাস নিয়ে রাজনীতি করতে চাইছে। তবে সম্বিতের সেই দাবিকে উড়িয়ে দিয়েছিল কংগ্রেস। এবার কার্যত কংগ্রেসের দাবিকে মান্যতা দিয়েই সম্বিত পাত্রের সেই টুইটকে টুইটার কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে ‘ম্যানিপুলেটেড মিডিয়া’ বা কারসাজি করা মিডিয়ার ট্যাগ দেওয়া হয়।

এর আগে বিজেপি নেতা সম্বিত পাত্র কংগ্রেসের এক টুলকিট প্রকাশ করে দাবি করেন, যে কংগ্রেস কোভিডকালে দলীয় কর্মীদের করোনা ভাইরাসের নতুন স্ট্রেনকে ‘মোদী স্ট্রেন’ বলার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। কংগ্রেস দাবি জানায়, এই টুলকিটটি ভুয়া। এই ঘটনায় বিজেপিকে পাল্টা কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে কংগ্রেসের দাবি, বিজেপি মিথ্যাচার করছে। কংগ্রেসের তরফে বলা হয়, ভুয়ো তথ্য ছড়াচ্ছে বিজেপি। অতিমারীর মোকাবিলা করতে ব্যর্থ বিজেপি সরকার। তাই এখন নিজেদের দোষ ঢাকতে মিথ্যে কথা রটিয়ে নিজেদের আড়াল করতে চাইছে। পাশাপাশি কংগ্রেসের পক্ষ থেকে হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছিল, ভুয়ো খবর ছড়ানোর দায়ে সম্বিত পাত্র এবং জেপি নাড্ডার বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

English