Tuesday, December 6, 2022
spot_img
Homeবিজ্ঞান ও প্রযুক্তিফোর্বসে যাফির আর শাহরুখ

ফোর্বসে যাফির আর শাহরুখ

শুরুটা

ছোটবেলা থেকেই যাফির শাফিই চৌধুরী ও মীর শাহরুখ ইসলাম ভালো বন্ধু ছিলেন। ষষ্ঠ শ্রেণি থেকে একসঙ্গে পড়াশোনা করেছেন একই স্কুলে। এরপর দুজনেই পড়াশোনা করেছেন ঢাকা কলেজে। যাফির ঢাকা কলেজ বিজ্ঞান ক্লাবের সভাপতি ও শাহরুখ ছিলেন সহসভাপতি।

এইচএসসির পর যাফির ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিকস বিষয়ে ভর্তি হন বুয়েটে এবং শাহরুখ একই বিষয়ে ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজিতে (আইইউটি) ভর্তি হন। বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম বর্ষে থাকার সময় থেকেই বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির বিষয়ে উদ্যোক্তা হিসেবে কাজ করা শুরু তাঁদের।

তাঁদের প্রথম প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান নিয়ে কাজ শুরু হয় ২০১১ সালে। তবে সেটা ‘সিঙ্গুলারিটি’ নামে আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করে ২০১২ সালে। শুরুতে সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট, ডিজিটাল কনটেন্ট ডেভেলপমেন্ট নিয়ে কাজ করতেন। প্রথম কাজটি পান তাঁদের এক বড় ভাইয়ের মাধ্যমে একটা বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের ডিজিটাল কনটেন্ট ডেভেলপ করার। এরপর ২০১৪ সালে ইন্টারনেট অব থিংস (আইওটি) ভিত্তিক প্রতিষ্ঠান ‘বন্ডস্টাইন টেকনোলজিস’ শুরু করেন। আইওটি নিয়ে কাজ করার পেছনে তাঁদের মূল উদ্দেশ্য তাঁরা যেহেতু প্রকৌশলী, তাঁদের প্রযুক্তিগত জ্ঞান দিয়ে স্থানীয় কোনো সমস্যা তাঁরা সমাধান করতে চেয়েছেন। সেন্সর ডোমেনে তাঁদের যে দক্ষতা সেটিই তাঁদের আইওটি নিয়ে কাজ করতে অনুপ্রেরণা জুগিয়েছে। কম্পানির নাম বন্ডস্টাইন কেন রাখলেন জিজ্ঞেস করতেই তাঁরা বলেন, “অনেকেই ভাবেন এটা একটা জার্মান নাম। কিন্তু তেমন কিছুই নয়। জেমস বন্ড এবং আইনস্টাইন—দুজনের নাম মিলিয়েই কম্পানির নাম রেখেছি ‘বন্ডস্টাইন’। ” ২০১৯ সালে ‘অ্যাপিকটা’র এশিয়া প্যাসিফিক আইওটি প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয় বন্ডস্টাইন। গত বছর রানার ট্রেডিং লিমিটেডের নেতৃত্বে ১০ লাখ ডলার বিনিয়োগ করা হয়েছে এই কম্পানিতে।

গাড়িতে আইওটি সেবা

আপনার গাড়িটিকে যদি ইন্টারনেটে সংযুক্ত করতে চান সে ক্ষেত্রে বন্ডস্টাইন প্রযুক্তিগত সেবা দেবে। এর ফলে আপনার গাড়িটি বর্তমানে কোথায় আছে, যিনি চালাচ্ছেন সেই চালকের গাড়ি চালানোর প্যাটার্ন, নিরাপদ কিংবা অনিরাপদভাবে গাড়ি চালাচ্ছেন কি না, গাড়িটি কত কিলোমিটার চলল, কতগুলো ট্রিপ দিল, গাড়িটির পরবর্তী মেইনটেন্যান্স কবে—এসব তথ্য গাড়ির মালিক জানতে পারবেন। এর বাইরেও বন্ডস্টাইন স্মার্টহোম সার্ভিস দিচ্ছে, যার মাধ্যমে গ্রাহক তাঁর বাসার লক, ফ্রিজ, টিভি, এসি, ওয়াই-ফাই ডিজিটালি সংযুক্ত করতে পারবেন। এতে করে নিজের বাসায় কোনো ধরনের চাবি ছাড়া ফিঙ্গারপ্রিন্টের মাধ্যমে ঢুকতে পারবেন আপনি। রুমের এসি, ফ্রিজ সহজেই মোবাইল থেকে নিয়ন্ত্রণ করা যাবে।

ইন্ডাস্ট্রিয়াল আইওটি সেবা

বন্ডস্টাইন বিভিন্ন বড় বড় কলকারখানায় ইন্ডাস্ট্রিয়াল আইওটি সেবা দিচ্ছে। এর মাধ্যমে বিভিন্ন যন্ত্রপাতি, প্রডাকশন লাইন, প্রডাকশন প্রক্রিয়া থেকে সেন্সরভিত্তিক ডাটা সংগ্রহ করে তা বিশ্লেষণ করে কলকারখানার কার্যক্ষতা বাড়ানোর জন্য তথ্য সরবরাহ করে থাকে।

দেশ-বিদেশের প্রায় এক হাজারের অধিক কম্পানিকে সেবা দিচ্ছে বন্ডস্টাইন। ওয়ালটন, রানার, রবি, মেঘনা গ্রুপসহ অনেক বড় বড় বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি বাংলাদেশ সেনাবাহিনী, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনসহ বেশ কিছু সরকারি প্রতিষ্ঠানেও আইটি সেবা দিচ্ছে তাঁদের প্রতিষ্ঠান।

রবির সঙ্গে আইওটি সেবা

মোবাইল সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান রবি ২০১৬ সাল থেকেই আইওটি নিয়ে কাজ করছে এবং মার্কেটে তাদের বিভিন্ন প্রডাক্ট আছে। রবি ভেহিকল ট্র্যাকার, রবি আইওটি ক্লাউড, রবি স্মার্টহোম সলিউশন ইত্যাদি। আর এসব সার্ভিসে বন্ডস্টাইন রবির সঙ্গে টেকনোলজি বা বিজনেস পার্টনার হিসেবে কাজ করছে।

রানারের কিস্তি তুলতে সাহায্য করবে

বাংলাদেশের বৃহত্তম অটোমোবাইল প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান রানার। বাংলাদেশে টু-হুইলার, থ্রি-হুইলারের যানবাহন ম্যানুফ্যাকচার করে থাকে প্রতিষ্ঠানটি। তাদের বড় একটি সমস্যা ছিল বিক্রি হওয়া যানবাহনের কিস্তি উত্তোলন নিয়ে। একটা ডাউন পেমেন্ট দিয়েই তাদের যানবাহন ক্রয় করা যায়।

এই গাড়িগুলো কোথায় আছে, কিভাবে চলছে, কিস্তির সময়সীমা, যদি কেউ কিস্তি দিতে অসম্মত হন তবে সেই গাড়ির লোকেশন জানার জন্য ট্র্যাকিং ভিত্তিক সলিউশন দিয়েছে বন্ডস্টাইন।

ওয়ালটনকে আইওটি সেবা

ওয়ালটনের ইলেকট্রনিকস পণ্য যাতে ডিজিটালি আইওটি ক্লাউডের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণ করা যায় সে জন্যও কাজ করে যাচ্ছে বন্ডস্টাইন।

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা সম্পর্কে জানতে চাইলে তাঁরা বলেন, ‘আমাদের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা বাংলাদেশে ইলেকট্রনিক ম্যানুফ্যাকচারিং সার্ভিস (ইএমএস) তৈরি করার। আইওটি ভিত্তিক সেবাগুলো বিদেশে আরো বৃহৎ পরিসরে দিতে চাই। ’

আইওটি কী?

আইওটির পূর্ণ নাম ‘ইন্টারনেট অব থিংস’। ইন্টারনেট ব্যবহার করে বিভিন্ন ধরনের ইলেকট্রনিকস যন্ত্রপাতি নিয়ন্ত্রণ করার নেটওয়ার্ককে ‘আইওটি’ বলা হয়ে থাকে। ইন্টারনেট ব্যবহার করে ইলেকট্রনিকস সামগ্রী যেমন—লাইট, ফ্যান, এসি, গিজার, ফ্রিজ, হিটার, পানির ট্যাংক ইত্যাদি নিয়ন্ত্রণ করা যায়। এ জন্য স্মার্টফোন এবং ইলেকট্রনিকস সামগ্রী—উভয়কেই ইন্টারনেট সংযোগের আওতাভুক্ত থাকতে হয়। এতে পৃথিবীর যেকোনো প্রান্তে অবস্থান করে নিজের স্মার্টফোনের সঙ্গে যুক্ত ইলেকট্রনিকস যন্ত্র সচল আছে কি না তা দেখা যায়, পাশাপাশি এসব যন্ত্র চালু এবং বন্ধ করা যায়। ফ্যান বা এসিকেও নিয়ন্ত্রণ করা যায়। বাংলাদেশে আইওটি মার্কেট শেয়ারে লিডিং পজিশনে রয়েছে বন্ডস্টাইন টেকনোলজি।

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments