Monday, May 20, 2024
spot_img

পত্র

এধারের পাতাগুলো বড্ড বেশি শুকনো হলদেটে বাসন্তী বর্ণিল
হেঁটে এগোনোর সময় পায়ের নিচ থেকে ক্রিসপি পটেটো চিপসের মতো
মুচমুচে শব্দ কানে আসে
আর ওধারের ডালগুলোতেতো পাতার নিশানাও নেই
ডালপালা গুলো লাকরি হয়ে জ্বলে উঠবার অপেক্ষায়…
তবুও দুধারের কোন বিভেদ নেই
দিগন্তে যেয়ে ঠিকি মিতালি পেতেছে, স্বজাতি তো!

অম্বর আজ নীলাভ নীলকে পেছন ফেলে ধূসর থেকে ধূসরতর
ঝাঁকে ঝাঁকে পক্ষীকূল কোথাও উধাও যেন,
বিবস বোবা প্রকৃতি।

তবুও না দেখা কিছু থেকে যায়, দিবাস্বপ্নের আড়ালে…
নিথর বিহ্বল স্বার্থপর গোত্রের অগোচরে

আচমকা পিঁপড়ের সারির মতো সারিবদ্ধ যন্ত্রজান
প্রাণের অস্তিত্ব জানান দিয়ে যায়
নিস্তব্ধতাকে খুন করে জীবনের জয়গান গাইতে আসে
কেউ আবার ক্ষণিকের অতিথি হয়ে খানিকটা জিরিয়ে নেয়
বেছে নেয় পত্রহীন শুকনো ডালের পাশকেই
অসমীয়া দ্বিস্তর বিশিষ্ট শুভ্র সমান্তরাল বিধিনিষেধ কেউ লঙ্ঘন করে না,
প্রয়োজন পড়ে না।

হয়তো জানে অনুরাগ থাকলে প্রীতি জন্মাবেই,
আজ নয়তো কাল সবুজ পাতা গজাবেই…
পাখিরা ফের বসবে ডালে ডালে,
চেনা প্রাঙ্গণ মুখরিত হবে তাদের গানে…

পিছু হটবে হলদে মচমচে নিষ্প্রভ অশুভ সকল।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments