Wednesday, April 17, 2024
spot_img
Homeখেলাধুলাতিন লাল কার্ড, উত্তেজনা ছড়ানো ম্যাচে শেষ মিনিটে হার এড়াল বার্সেলোনা

তিন লাল কার্ড, উত্তেজনা ছড়ানো ম্যাচে শেষ মিনিটে হার এড়াল বার্সেলোনা

পুরো ম্যাচেই ছড়িয়েছে উত্তেজনা। আক্রমণ পালটা আক্রমণের ম্যাচে চোখ সরানোর সুযোগ ছিলনা।   প্রথমার্ধে সমানে সমান থাকার পর দ্বিতীয়ার্ধে স্বাগতিকদের এগিয়ে যাওয়া। ম্যাচের অন্তিম মুহুর্তের গোলে শেষ পর্যন্ত হার থেকে রক্ষা পায় বার্সেলোনা।

মাঝ খানে দেখা মিলেছে তিন লাল কার্ডের।

রবিবার রাতে লা লিগায় ঘরের মাঠে বার্সেলোনার সঙ্গে ২-২ গোলে ড্র করেছে এস্পানিওল। লা লিগায় এস্পানিওলের বিপক্ষে এ নিয়ে টানা ২৩ ম্যাচ অপরাজিত থাকলো বার্সেলোনা। সব প্রতিযোগীতা মিলে টানা ছয় ম্যাচ জয়হীন এস্পানিওল। এই জয়ে ২৩ ম্যাচে ৩৯ পয়েন্ট নিয়ে চতুর্থ স্থানে বার্সেলোনা। ২৪ ম্যাচে ২৮ পয়েন্ট নিয়ে তেরোতম স্থানে এস্পানিওল। সমান ম্যাচে ৫৪ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে রিয়াল মাদ্রিদ এবং ৫০ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে সেভিয়া।

আগের ম্যাচে আতলেতিকো মাদ্রিদকে হারিয়ে বেশ ফুরফুরে মেজাজে ছিল বার্সেলোনা। শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক জাভির দল। তবে ছেড়ে কথা বলেনি এস্পানিওলও। বার্সেলোনার আক্রমণ রুখে দিয়ে নিজেরাও আক্রমণে দ্রুতি ছড়িয়েছে।

ম্যাচের প্রথম আক্রমণেই গোল আদায় করে নেয় বার্সেলোনা। দ্বিতীয় মিনিটে ডান দিক থেকে জর্দি আলবার মাপা ক্রসে দূরের পোস্টে পা লাগিয়ে বল জালে জড়ান পেদরি। পিছিয়ে পড়ে ম্যাচে ফিরতে মরিয়া হয়ে উঠে স্বাগতিক এস্পানিওল। আক্রমণে উঠলেও সমন্বয়হীনতায় গোলের দেখা পায়নি স্বাগতিকরা। ৩৭ মিনিটে বক্সের ভেতর থেকে এডামা ত্রাওরের গতির শট ঠেকিয়ে এস্পানিওলকে রক্ষা করেন গোলরক্ষক। পরের মিনিটেই ফেরান তোরেসের দারুন হেড লক্ষ্যভ্রষ্ট হলে ব্যবধান বাড়াতে পারেনি বার্সেলোনা।

৪০ মিনিটে এস্পানিওলকে সমতায় ফেরান সার্জি দারদার। বক্সের বাইরে থেকে বাঁকানো শটে দূরের পোস্টে লক্ষ্যভেদ করেন এই ফরোয়ার্ড। বাঁ দিকে ঝাঁপিয়েও নাগাল পাননি গোলরক্ষক আন্দ্রে টার স্টেগান। গোলের পর ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর ট্রেড মার্ক ‘সিইউ’ সেলিব্রেশন করেন দারদার।

৫৭ মিনিটে বল জালে জড়িয়েছিলেন গাভি কিন্তু অফসাইডে থাকায় গোল হয়নি। ৬৫ মিনিটে এস্পানিওলকে এগিয়ে নেন ডি থমাস। মাঝ মাঠ থেকে সার্জি দারদারের বাড়ানো বল অফসাইড ফাঁদ ভেঙ্গে বল বুক দিয়ে নামিয়ে নিয়ন্ত্রণ নিয়ে আদ্রে টার স্টেগানকে ফাঁকি দিয়ে ঠান্ডা মাথায় বল জালে জড়ান থমাস।

পিছিয়ে পড়ে সমতায় ফিরতে দলে নতুন যোগ দেওয়া অবামেয়াং, ডি জং, ওসমান দেম্বেলেকে মাঠে নামান জাভি। তবুও কাজের কাজ কিছুই হচ্ছিলোনা। বেশ কয়েকবার আক্রমণ করে ভাঙতে পারছিল না এস্পানিওলের রক্ষণভাগ। তখনো ছিল নাটকীয়তার বাকি। নির্ধারিত নব্বই মিনিট শেষ হলে দেওয়া হয় অতিরিক্ত ছয় মিনিট। সেখানেই বাজিমাত করে বার্সেলোনা। যোগ করা ছয় মিনিটের মাথায় বার্সেলোনাকে সমতায় ফেরান লুক ডি জং। এডামা ত্রাওরের হাওয়ায় ভাসানো ক্রসে হেডে লক্ষ্যভেদ করে বার্সেলোনাকে এক পয়েন্ট এনে দেন এই ডাচ ফুটবলার।

এর আগে ৯২ মিনিটে ১০ জনের দলে পরিণত হয় দুই দলই। দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন বার্সেলোনার জেরার্ড পিকে এবং এস্পানিওলের মিডফিল্ডার মেলামেদ। প্রথমে পিকে পেছন থেকে মেলামেদকে টান দিলে পর মুহূর্তেই পিকেকে পেছন থেকে টান দিয়ে ফেলে দেন মেলামদ। ফলে দুজনই লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন। এছাড়া শেষ মুহূর্তে রেফারির সঙ্গে তর্কে জড়িয়ে লাল কার্ড দেখেন এস্পানিওলের মানু মোরালেস।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments