Monday, March 20, 2023
spot_img
Homeবিজ্ঞান ও প্রযুক্তিটুইটারের প্রধান নির্বাহীর পদ ছাড়ার ঘোষণা মাস্কের

টুইটারের প্রধান নির্বাহীর পদ ছাড়ার ঘোষণা মাস্কের

যোগ্য কাউকে পেলেই টুইটারের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বা সিইও পদ থেকে রিজাইন দেবেন ইলন মাস্ক। এক টুইট বার্তায় তিনি তার এ পরিকল্পনার কথা ঘোষণা করেছেন। এতে তিনি বলেন, টুইটারের সিইও হতে চায় এমন ‘যথেষ্ট বোকা’ কাউকে পেলে তিনি এই পদ ছেড়ে দেবেন। এ খবর দিয়েছে বিবিসি।
খবরে জানানো হয়, গত এক সপ্তাহ ধরেই নতুন করে টুইটারের সিইও পদ নিয়ে আলোচনা চলছে। কয়েক দিন আগে ইলন মাস্ক ঘোষণা দেন, তাকে যদি টুইটার ব্যবহারকারীরা সিইও পদে দেখতে না চান তাহলে তিনি এ দায়িত্ব থেকে সরে যাবেন। এরপর তিনি একটি ভোটের আয়োজন করেন নিজের একাউন্ট থেকে। সেখানে ৫৭ শতাংশ মানুষ ইলনকে টুইটারের দায়িত্ব থেকে সরে দাঁড়ানোর পক্ষে ভোট দিয়েছেন। এরপরই ইলন জানালেন, সংখ্যাগরিষ্ঠের ইচ্ছা মেনে তিনি নতুন সিইও নিয়োগ দেবেন। এরপর তিনি শুধু সফটওয়্যার ও সার্ভার টিমগুলোর দায়িত্বে থাকবেন।
গত অক্টোবর মাসে টুইটার কিনে নেন মাস্ক। এরপর থেকেই একের পর এক পরিবর্তন এনে চলেছেন তিনি।

প্রথমেই তিনি টুইটারের অর্ধেক কর্মীকে ছাঁটাই করে দেন। এরপর ব্লু টিক পাওয়া একাউন্টগুলোকে মাসিক ৮ ডলার করে দেয়ার নিয়ম চালু করেন। এছাড়া তিনি এর আগে ব্যান হওয়া একাউন্টগুলো ফিরিয়ে আনেন। এরমধ্যে আছে সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের একাউন্টও। এসব পদক্ষেপের পর বিভিন্ন সংগঠনের তরফ থেকে উদ্বেগ জানানো হয়েছে। তারা আশঙ্কা করছেন, টুইটারে হয়ত নির্দিষ্ট গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে ঘৃণা ছড়ানো বেড়ে যাবে। 
টুইটার থেকে কিছু সাংবাদিককে নির্দিষ্ট কারণে সাময়িকভাবে নিষিদ্ধ করার পর জাতিসংঘ এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন এর নিন্দা জানিয়েছিল। জাতিসংঘ টুইট করেছে বলেছে, মিডিয়ার স্বাধীনতা কোনো খেলনা নয়। অন্যদিকে ইইউ টুইটারকে নিষেধাজ্ঞার হুমকি দিয়েছে। এরইমধ্যে টুইটারের দায়িত্ব ছাড়ার ঘোষণা দিলেন মাস্ক। তবে তার মতে, সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মটির দায়িত্ব গ্রহণ করার জন্য কাউকে খুঁজে পাওয়া একটি চ্যালেঞ্জ হতে পারে। অনেকের অনুমান, টুইটারের সহ-প্রতিষ্ঠাতা জ্যাক ডরসিও কোম্পানি চালাতে ফিরে আসতে পারেন। তিনি গত বছর প্রধান নির্বাহীর পদ থেকে পদত্যাগ করেছিলেন।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments