Wednesday, April 17, 2024
spot_img
Homeখেলাধুলাজয় পেতে হলে রেকর্ড গড়তে হবে ইংল্যান্ডকে

জয় পেতে হলে রেকর্ড গড়তে হবে ইংল্যান্ডকে

এজবাস্টন টেস্টে ইংল্যান্ডকে ৩৭৮ রানের লক্ষ্য দিয়েছে ভারত। এই ভেন্যুতে সর্বোচ্চ ২৮১ রান তাড়া করে জয়ের নজির আছে। ২০০৮ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে কীর্তিটি গড়েছিল দক্ষিণ আফ্রিকা। 
চতুর্থ দিনের দ্বিতীয় সেশনে অলআউট হয় ভারত। দিনের খেলা বাকি তখনো ৫৯ ওভার। দ্বিতীয় ইনিংসে চেতেশ^র পূজারা ও ঋষভ পন্তের হাফসেঞ্চুরিতে ভারত সংগ্রহ করে ২৪৫ রান। প্রথম ইনিংসে ইংল্যান্ডের চেয়ে ১৩২ রানে এগিয়ে ছিল সফরকারীরা। ৫ ম্যাচ সিরিজে ২-১ ব্যবধানে এগিয়ে থাকায় এজবাস্টনে ড্র করলেও সিরিজ নিশ্চিত করে ফেলবে ভারত। ২০০৭ সালে সর্বশেষ ইংল্যান্ডের মাটিতে টেস্ট সিরিজ জেতে তারা।
৩ উইকেটে ১২৫ রান নিয়ে চতুর্থ দিনের খেলা শুরু করে ভারত। চেতেশ^র পূজারা ৫০ ও ঋষভ পন্ত ৩০ রান নিয়ে পুনরায় ব্যাট করতে নামেন। ব্যক্তিগত ৬৬ রানে স্টুয়ার্ট ব্রডের বলে আউট হন পূজারা।

চতুর্থ উইকেটে ৭৮ রানের জুটি ভাঙে এতে। উইকেটে এসে  ১৬ বলে ১৯ রান করে সাজঘরে ফেরত যান শ্রেয়স আইয়ার। তার উইকেটটি নেন ম্যাটি পটস। ৬ রানের ব্যবধানে বিদায় নেন পন্তও। টেস্ট ক্যারিয়ারের দশম হাফসেঞ্চুরি পূর্ণ করে জ্যাক লিচের বলে আউট হন ৫৭ রানে। ৮৬ বলের ইনিংসে ছিল ৮টি চারের মার।
শর্দুল ঠাকুরকে (৪) জ্যাক ক্রলির ক্যাচ বানান ম্যাটি পটস। মোহাম্মদ শামির (১৪) উইকেট তুলে নেন স্টোকস। তিনি বোল্ড করেন প্রথম ইনিংসের সেঞ্চুরিয়ান রবীন্দ্র জাদেজাকেও (২৩)। প্রথম ইনিংসে ব্যাট হাতে ঝড় তোলা জসপ্রিত বুমরাহ এবার ৭ রান করে আউট হন। দ্বিতীয় ইনিংসে ইংল্যান্ডের হয়ে সর্বোচ্চ ৪ উইকেট নেন অধিনায়ক বেন স্টোকস।
প্রথম ইনিংসে ঋষভ পন্তের ১৪৬ এবং রবীন্দ্র জাদেজার ১০৪ রানের সুবাদে ৪১৬ রান সংগ্রহ করে ভারত। ইংল্যান্ডের পক্ষে ৫ উইকেট পেসার জিমি অ্যান্ডারসনের। জবাবে ২৮৪ রানে অলআউট হয় ইংল্যান্ড। সর্বোচ্চ ১০৬ রান আসে জনি বেয়ারস্টোর ব্যাট থেকে। দলের পক্ষে আর কেউ হাফসেঞ্চুরিও করতে পারেননি। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩৬ রান করেন উইকেটরক্ষক স্যাম বিলিংস। ভারতের হয়ে ৪ উইকেট নেন ডানহাতি পেসার মোহাম্মদ সিরাজ। অধিনায়ক বুমরাহ ৩টি এবং মোহাম্মদ শামির শিকার ২ উইকেট।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments