Saturday, July 20, 2024
spot_img
Homeধর্মজ্ঞানবাপী মসজিদের ভেতরে পুজার ঘোষণা, বারাণসীতে ধুন্ধুমার

জ্ঞানবাপী মসজিদের ভেতরে পুজার ঘোষণা, বারাণসীতে ধুন্ধুমার

কাশীর ঐতিহাসিক জ্ঞানবাপী মসজিদ চত্বরে শিবলিঙ্গ সৃদশ কাঠামোটি ঘিরে নতুন করে উত্তেজনা ছাড়ায় শনিবার। গত শুক্রবার বারাণসীর বিদ্যা মঠের প্রধান স্বামী অভিমুক্তেশ্বরানন্দ মসজিদ চত্বরে শিবলিঙ্গ সদৃশ কাঠামোটি পুজা করার কথা ঘোষণা করেন। শনিবারই তারা পুজো করার সিদ্ধান্ত নেয়। পুলিশ পুজা অনুমতি না দেয়ায় ধুন্ধুমার কাণ্ড বাঁধে।

মাঝে কয়েকদিন বিরতির পর ফের একবার খবরের শিরোনামে বারণসীর জ্ঞানবাপী মসজিদ। শিবলিঙ্গ সদৃশ কাঠামোটিকে বারণসীর বিদ্যামঠের প্রধান স্বামী অভিমুক্তেশ্বরানন্দ পুজা করতে চাওয়ায় এই বিপত্তি ঘটে। তিনি একা নন। ৭০ জনের বেশি অনুগামী নিয়ে তিনি এই পুজা করবেন বলে ৩ জুন ঘোষণা করেছিলেন। তিনি জানিয়েছিলেন, শনিবার পুজা উপলক্ষে অনুগামী নিয়ে মসজিদ চত্বরে যাবেন। মঠ প্রধানের এই ঘোষণার পরেই নড়েচড়ে বসে বারণসীর পুলিশ। পুজার অনুমতি না মেলায় পাশপাশি নতুন করে যাতে উত্তেজনা না ছড়ায়, মঠের গেটেই অভিমুক্তেশ্বরানন্দের পথ আটকানো হয়। সেই সঙ্গে আশ্রমের গেটে পুলিশি পাহাড়ের বন্দোবস্ত করা হয়।

জ্ঞানবাপী বিতর্ক ইতিমধ্যে গড়িয়েছে সুপ্রিম কোর্ট পর্যন্ত। গত ২০ মে এক পর্যবেক্ষণে সুপ্রিম কোর্ট জানায়, ধর্মস্থানে ‘মিশ্র চরিত্র’ নতুন কিছু নয়। মন্দির-মসজিদ বিতর্কে স্থিতাবস্থার পক্ষেই মত দেয় শীর্ষ আদালত। সেই সঙ্গে মামলাটি বারণসীর জেলা আদালতে ফিরিয়ে দেয়ার পাশপাশি মসজিদের ওজুখানা সিল করার নির্দেশ দেয়। তবে নামাজ পাঠ করা যাবে বলে পর্যবেক্ষণে জানিয়ে দেয় সুপ্রিম কোর্ট। তবে যেভাবে কাঠামো সংক্রান্ত সার্ভে রিপোর্ট প্রকাশ্যে এসে পড়েছে, তাতে ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড় বেঞ্চ।

বারণসী কাণ্ড আরএসএস সমর্থন করছে না, তা স্পষ্ট করে দিয়েছেন মোহন ভাগবতও। চলমান বিবাদ নিয়ে বৃহস্পতিবারই মুখ খুলেছেন তিনি। নাগপুরে দলীয় কার্যালয়ে তিনি যা বলেছেন, তাতে জ্ঞানবাপী নিয়ে উগ্র হিন্দুত্ববাদী সংগঠনগুলির অতি সক্রিয়তা জোর ধাক্কা যে খাবে, তাতে সন্দেহ নেই। মন্দির-মসজিদে কেন শিব লিঙ্গ খুঁজে বেড়ানো হচ্ছে, তা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। তার লক্ষ্য যে মন্দির পুনরুদ্ধারে নামে সংগঠনগুলির দিকে, তা তিনি স্পষ্ট করে দিয়েছেন। আরএসএস প্রধানের ঘোষণার পর কেন পুজাপাঠের সিদ্ধান্ত, তা নিয়ে তৈরি হয়েছে কৌতূহল। সূত্র: টিওআই।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments