Sunday, June 23, 2024
spot_img
Homeসাহিত্যজনস্রোতে বাংলা ভাষার জন্য ভালোবাসা

জনস্রোতে বাংলা ভাষার জন্য ভালোবাসা

মহান একুশের দিনে ভাষা আন্দোলনের শহিদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছে জাতি। তাদের আত্মত্যাগের প্রতি সম্মান ও ভালোবাসা জানানো হয়েছে নানা আয়োজনে। অমর একুশে বইমেলায়ও এর ব্যতিক্রম ছিল না। এদিন শিশু-কিশোরসহ নানা বয়সি নারী-পুরুষের পোশাকে প্রাধান্য পেয়েছে কালো রং। বাংলা বর্ণমালা খচিত ছিল অনেকের পোশাকে। শহিদ মিনার থেকে জনস্রোত ছুটে এসেছিল অমর একুশে বইমেলায়। সারা দিন বইমেলা ও তার আশপাশে বেজেছে সেই অমর গান-আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি, আমি কি ভুলিতে পারি। সেই গানের সঙ্গে গুনগুন করে সুর মিলিয়েছেন মেলায় আগতরাও।

মহান শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষ্যে সোমবার বইমেলা শুরু হয় সকাল ৮টায়। চলে রাত ৯টা পর্যন্ত। এদিন শহিদ মিনারে যারা ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন তাদের বেশিরভাগই দিনের নানা সময়ে মেলায় এসেছেন। বেলা একটু বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মেলায় নামে মানুষের ঢল। সন্ধ্যা নামার আগেই তা জনারণ্যে পরিণত হয়। একসময় সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ভরে যায় কানায় কানায়।

অনেকে পরিবার নিয়ে সারা দিন কাটিয়েছেন মেলা প্রাঙ্গণেই। দুপুরবেলা জ্ঞান ও সৃজনশীল প্রকাশক সমিতির সামনে বিছিয়ে দেওয়া লাল গালিচায় অন্তত বিশটি পরিবারকে পরিশ্রান্ত হয়ে বিশ্রাম নিতে দেখা গেছে। অনেকে এসেছিলেন বন্ধুদের নিয়ে। স্ত্রীসহ দুই সন্তানকে নিয়ে মোহাম্মদপুর থেকে আসা মাজেদুল হাসান যুগান্তরকে বলেন, শহিদ মিনার থেকে মেলায় এসে এখানেই দুপুরের খাবার খেয়েছি। পুরো সময়টাতে পরিবারের সবাই এক এক করে ঘুরে যার যার পছন্দমতো বই কিনেছি। সন্তানরা বড় হচ্ছে। তাই চেয়েছি, পুরো একটা দিন তাদের সঙ্গে কাটানোর মধ্য দিয়ে ভাষা আন্দোলন, শহিদ মিনার, আমাদের ইতিহাস, ঐতিহ্যের বিষয়গুলোর সঙ্গে যুক্ত থাকতে।

এদিন মেলা প্রাঙ্গণে দেখা যায়, বিভিন্ন প্যাভিলিয়ন ও স্টলগুলোতে বিক্রয়কর্মীদের দম নেওয়ার মতো ফুরসতও ছিল না। ছোট-বড় সব প্রকাশনীতে ছিল পাঠকের ভিড়। হাতে হাতে ছিল নতুন কেনা বইয়ের ব্যাগ। বিকালের পর আড্ডা জমেছিল লিটল ম্যাগ চত্বরেও।

মঞ্চের আয়োজন : শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষ্যে বাংলা একাডেমি বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করে। বিকাল ৪টায় অনুষ্ঠিত হয় অমর একুশে বক্তৃতা ২০২২। স্বাগত বক্তব্য দেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক কবি মুহম্মদ নূরুল হুদা। ‘ফিরে দেখা : আমাদের ভাষা আন্দোলন’ শীর্ষক বক্তব্য দেন কবি আসাদ চৌধুরী। সভাপতিত্ব করেন বাংলা একাডেমির সভাপতি কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন।

কবি মুহম্মদ নূরুল হুদা বলেন, আমাদের একুশ এখন সারা বিশ্বের। একুশের ৭০ বছর আমাদের জাতিসত্তার উৎসমূলে নতুন করে দৃষ্টিপাতে এবং ভাষা-সংস্কৃতি ও জাতিতাত্ত্বিক নিবিড় আত্মঅন্বেষায় উদ্বুদ্ধ করে।

কবি আসাদ চৌধুরী বলেন, অমর একুশের ৭০ বছর পূর্ণ হলো আজ। তবে বাঙালির ভাষা আন্দোলন শুধু ৭০ বছরের বিষয় নয়। হাজার বছর ধরে বাঙালি আধিপত্যবাদী শক্তির বিরুদ্ধে নিজস্ব ভাষা ও সংস্কৃতির অধিকারের জন্য লড়াই করে এসেছে। তারা এ আন্দোলনকে রাষ্ট্রভাষা বাংলার অধিকার প্রতিষ্ঠার পরিণতিতে নিয়ে গেছে এবং কালক্রমে স্বাধীন বাংলাদেশ রাষ্ট্রের অভ্যুদয়কে আসন্ন করেছে।

কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন বলেন, ভাষাসংগ্রামের মধ্য দিয়ে ভাষাভিত্তিক বাঙালি জাতিরাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠা আমাদের সবচেয়ে বড় অর্জন।

এদিন লেখক বলছি অনুষ্ঠানে নিজের বই নিয়ে আলোচনা করেন ইমদাদুল হক মিলন ও আনিসুল হক। অনুষ্ঠানে কবিতা পাঠ করেন কবি মাকিদ হায়দার, বিমল গুহ ও আবদুস সামাদ ফারুক। আবৃত্তি পরিবেশন করেন দেওয়ান সাইদুল হাসান, জয়ন্ত রায় ও শাহাদৎ হোসেন নিপু। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করে ঋষিজ শিল্পীগোষ্ঠী। নৃত্য পরিবেশন করেন সৌন্দর্য প্রিয়দর্শিনী ঝুম্পা ও ফরহাদ আহমেদ শামীম। সংগীত পরিবেশন করেন মহাদেব চন্দ্র ঘোষ, কল্যাণী ঘোষ, স্বর্ণময়ী মণ্ডল, তাজুল ইমাম ও আরিফ রহমান।

ভাষাশহিদ মুক্তমঞ্চের অনুষ্ঠান : সকালে মঞ্চে শুরু হয় কবিকণ্ঠে কবিতাপাঠ। স্বরচিত কবিতাপাঠে অংশ নেন অর্ধশতাধিক কবি। সভাপতিত্ব করেন কবি অসীম সাহা। বিকালে এ মঞ্চে অনুষ্ঠিত হয় কবিকণ্ঠে একুশের কবিতাপাঠ। স্বরচিত কবিতা পাঠে অংশ নেন পঁচিশ কবি। সভাপতিত্ব করেন বাংলা একাডেমির সচিব কবি হাসানাত লোকমান। অমর একুশের ৭০ বছর পূর্তি স্মরণে প্রদর্শিত হয় শহিদ জহির রায়হান পরিচালিত ভাষা আন্দোলনের ঐতিহাসিক চলচ্চিত্র- জীবন থেকে নেওয়া।

নতুন বই : সোমবার অমর একুশে বইমেলায় নতুন বই প্রকাশ হয়েছে মোট ২২৪টি। এর মধ্যে অন্যপ্রকাশ থেকে এসেছে সৈয়দ মনজুরুল ইসলামের দেখা-অদেখার গল্প, অনন্যা থেকে ইমদাদুল হক মিলনের লেখা বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে ছোটদের গল্প খোকার ছাতা, ইত্যাদি গ্রন্থপ্রকাশ থেকে দেবপ্রিয় চাকমার চাকমা জাতি : সংগ্রাম, সংঘর্ষ ও বিজয় (১৭১১-২০২১), কথাপ্রকাশ থেকে ইমদাদুল হক মিলনের ভূতুড়ে, অক্ষর প্রকাশনী থেকে শামসুর রাহমানের নির্বাচিত ৩০০ কবিতা, উৎস প্রকাশন থেকে ফারুক মঈনউদ্দীনের শেখ মুজিব দস্তইয়েফস্কি ও অন্যান্য অনূদিত প্রসঙ্গ, কাব্যকথা থেকে মুহম্মদ নূরুল হুদার বালিশ্লোক, তূর্য প্রকাশনী থেকে ফকির আলমগীরের সংস্কৃতিতে আমাদের মুক্তিযুদ্ধ, খুশবু প্রকাশন থেকে ধ্রুব এষের মেশিন যুগ, পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স থেকে সঙ্গীতা ইমামের সুখের রাজ্যে তুলতুল, আফসার ব্রাদার্স থেকে অরুণ কুমার বিশ্বাসের ভয়ংকর পাঁচ।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments