Tuesday, May 21, 2024
spot_img
Homeখেলাধুলাচ্যাম্পিয়ন্স লিগে চোখ টাচেলের

চ্যাম্পিয়ন্স লিগে চোখ টাচেলের

২০২১ সালে চেলসির কোচ হিসেবে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শিরোপা জয়ের আনন্দ আবারো বায়ার্ন মিউনিখের হয়ে উপভোগ করতে চান থমাস টাচেল। চ্যাম্পিয়ন্স লিগে কোয়ার্টার ফাইনালের দ্বিতীয় লেগে বুধবার আর্সেনালের বিপক্ষে জয়ের মাধ্যমে আরো একধাপ এগিয়ে যাওয়ার ব্যপারে আশাবাদী বায়ার্ন কোচ।

ঘরোয়া লিগে হতাশাজনক পারফরমেন্সের কারণে বায়ার লেভারকুসেনের কাছে ১১ বছরের আধিপত্য হারালেও চ্যাম্পিয়ন্স লিগে এখনো টিকে রয়েছে বেভারিয়ান্সরা। লন্ডনে প্রথম লেগে ২-২ গোলের ড্র তাদেরকে কিছুটা হলেও এগিয়ে রেখেছে। আর এই পথে ইংলিশ অধিনায়ক হ্যারি কেনের উপরই তাদের মূল ভরসা। জাভি আলোনসোর বায়ার লেভারকুসেন ইতোমধ্যেই যেহেতু বুন্দেসলিগার শিরোপা নিশ্চিত করে ফেলেছে সে কারণে চ্যাম্পিয়ন্স লিগই এখন টাচেলের সামনে একমাত্র সুযোগ।

শুধুমাত্র ইউরোপে মনোনিবেশ করার সুযোগও অন্য দলগুলোর তুলনায় বায়ার্নকে এগিয়ে রাখবে। এখন এই সুযোগ কাজে লাগানোর দায়িত্ব পুরোটাই খেলোয়াড়দের ওপর। বিশেষ করে এই মুহূর্তে প্রিমিয়ার লিগের শিরোপা লড়াইয়ে আর্সেনাল বেশ নার্ভাস পজিশনে রয়েছে। এই সুযোগটাই কাজে লাগাতে চায় বায়ার্ন।

কিছুটা নির্ভার হয়ে তাই ইউরোপে খেলতে যাচ্ছে বায়ার্ন। শনিবার ধুকতে থাকা কোলনের বিপক্ষে ঘরের মাঠে ২-০ গোলের জয়ের ম্যাচটিতে টাচেল ইউরোপীয়ান প্রতিযোগিতাকে মাথায় রেখে সাতটি পরিবর্তন করে মূল দল সাজিয়েছিলেন। এই ম্যাচে অধিনায়ক ম্যানুয়েল নয়্যার ও উইঙ্গার লেরয় সানে স্ট্যান্ড থেকে ম্যাচ উপভোগ করেছেন।

যদিও আর্সেনালের বিপক্ষ বেশ কয়েকজন মূল দলের খেলোয়াড়কে পাচ্ছে না জার্মান জায়ান্টরা। কানাডিয়ান ডিফেন্ডার আলফোনসো ডেভিস নিষেধাজ্ঞায় রয়েছে। ফরোয়ার্ড সার্জি গ্যানাব্রি ও কিংসলে কোম্যান রয়েছেন ইনজুরিতে। ডেভিসের স্থানে কে খেলবেন সে ব্যপারে নির্দিষ্ট করে কিছু বলেননি টাচেল। কোন একজন সেন্টার ব্যাককে হয়তো লেফট-ব্যাক পজিশনে নিয়ে যাওয়া হতে পারে। তবে সবকিছুর পরে টাচেল জয়  ছাড়া  অন্য কোন কিছুই চিন্তা করছেন না।

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের দুটি শিরোপা জয়ের অভিজ্ঞতা পাওয়া বায়ার্নের অভিজ্ঞ থমাস মুলার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লিখেছেন, ‘এখন আমাদের সম্পূর্ণ মনোযোগ ইউরোপে। আলিয়াঁজ এ্যারেনাতে এই বিশেষ মুহূর্তটি আমরা সবাই উপভোগ করতে চাই। আমিও এই ম্যাচটির জন্য মুখিয়ে আছি।’

নক আউট ফুটবলে কৌশলী না হলে জেতাটা অসম্ভব। সেদিক থেকে টাচেলের সুখ্যাতি রয়েছে। খেলোয়াড়দের স্বাধীনতা দেবার বিষয়টিও এখানে গুরুত্বপূর্ণ। ফ্রান্স ও জার্মানীতে লিগ জয়ী টাচেলের জয়ের অভিজ্ঞতাও সমৃদ্ধ। সবকিছুই তিনি ইউরোপে কাজে লাগাতে চান।

২০১৭ সালে সেমিফাইনালে বায়ার্ন মিউনিখকে ৩-২ গোলে হারিয়ে তার অধীনে ডর্টমুন্ড জার্মান কাপের শিরোপা জিতেছিল। এটাই তার ক্যারিয়ারে কোচ হিসেবে প্রথম বড় কোন শিরোপা ছিল।

ডর্টমুন্ডের হয়ে তার একমাত্র চ্যাম্পিয়ন্স লিগ মৌসুম ভালই কেটেছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত খুব বেশীদুর এগুতে পারেনি। গ্রুপ পর্ব চ্যাম্পিয়ন রিয়াল মাদ্রিদেও থেকে এগিয়ে শেষ করেছিল ডর্টমুন্ড। কোয়ার্টার ফাইনালে মোনাকোর কাছে হেরে বিদায় নিতে হয়। জার্মান কাপ জয়ের একদিন পরেই টাচেলকে ছাঁটাই করেছিল ডর্টমুন্ড।

পিএসজি ও চেলসিতে দুই দেশেই ঘরোয়া কাপ প্রতিযোগিতার ফাইনালে খেলেছিল টাচেলের দল। পিএসজিকে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালও উপহার দিয়েছিলেন টাচেল। ফাইনালে অবশ্য বায়ার্ন মিউনিখের কাছে ১-০ গোলে হতাশ হতে হয়। পরের মৌসুমে কিংবদন্তী ফ্রাংক ল্যাম্পার্ডের স্থানে চেলসিতে নিয়োগ পান টাচেল। ধীরে ধীরে তিনি চেলসিকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যান। চ্যাম্পিয়ন্স লিগে অল ইংল্যান্ড ফাইনালে ফেবারিট ম্যানচেস্টার সিটিকে হারিয়ে চেলসি দ্বিতীয়বারের মত শিরোপা জয় করে।

আরো একটি চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শিরোপা এখন তার সামনে। এবার ভিন্ন দল নিয়ে আরো বেশী আশাবাদী টাচেল। ওয়েম্বলিতে সেই কাঙ্খিত শিরোপা জয়ের পথে আর মাত্র চার ম্যাচ বাকি রয়েছে।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments