Wednesday, April 17, 2024
spot_img
Homeনির্বাচিত কলামকেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রতিবেদন

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রতিবেদন

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মুদ্রা ও মুদ্রা বিনিময় হারসংক্রান্ত ত্রৈমাসিক প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, বৈশ্বিক অর্থনৈতিক অবস্থার প্রেক্ষাপটে দেশের সামষ্টিক অর্থনীতিতে চলমান সংকটের নেতিবাচক প্রভাব আরও দীর্ঘায়িত হচ্ছে। এর মধ্যে মূল্যস্ফীতির ঊর্ধ্বগতি, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভে চাপ ও বিনিময় হারে অস্থিতিশীলতার প্রভাব বাড়ছে। উচ্চ মূল্যস্ফীতির কারণে দেশে নানা রকম সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে। দ্রুত এসব সমস্যার সমাধান না করলে দীর্ঘমেয়াদে সামষ্টিক অর্থনৈতিক কার্যক্রমে এগুলোর জোরালো প্রভাব পড়তে পারে, প্রতিবেদনে এমন আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়, বিদ্যমান পরিস্থিতি মোকাবিলায় চলতি অর্থবছরের দ্বিতীয়ার্ধের জন্যও সংকোচনমুখী মুদ্রানীতি অনুসরণ করা হচ্ছে।

আশা করা হচ্ছে, এতে মূল্যস্ফীতির হার কমবে। বর্তমানে সামষ্টিক অর্থনৈতিক অবস্থার প্রেক্ষাপটে দেশজ প্রবৃদ্ধির গতিশীলতা বজায় রাখার পাশাপাশি দ্রব্যমূল্যে স্থিতিশীলতা আনার জন্য সরকারের নীতিপদক্ষেপ অনুসরণ ও প্রয়োজনীয় সমন্বয় সাধনের মাধ্যমে কেন্দ্রীয় ব্যাংক কার্যকর ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে। সাম্প্রতিক বৈশ্বিক সংকটময় পরিস্থিতিতে কৃষি, রপ্তানিমুখী শিল্প, আমদানি বিকল্প শিল্প এবং কুটির, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প খাতে গুরুত্ব প্রদান করা হয়েছে, যা দেশের সামষ্টিক অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে সক্ষম হবে। জানা যায়, চলতি অর্থবছরে অর্থনীতির প্রধান সূচকগুলোতে অস্থিরতার প্রভাব দীর্ঘায়িত হচ্ছে। একইসঙ্গে অর্থনীতিকে পুনরুদ্ধার করতে যেসব লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে সেগুলোর বেশিরভাগই অর্জিত হয়নি; এমনকি গত বছরের তুলনায়ও অগ্রগতি কম হয়েছে। এমন প্রেক্ষাপটে পরিস্থিতি মোকাবিলায় কর্তৃপক্ষকে সময়োপযোগী পদক্ষেপ নিতে হবে। দেশে বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে।

বস্তুত ডলার সংকট দেশের অর্থনীতিতে নানামুখী সংকট সৃষ্টি করছে। সম্প্রতি আমদানি ব্যয় বৃদ্ধি পেলেও রপ্তানি ও রেমিট্যান্স আয় আশাব্যঞ্জক নয়। এসব কারণে বৈদেশিক লেনদেনের ভারসাম্যে চাপ সৃষ্টি হয়েছে। ডলার সংকটে নিত্যপণ্য ও সেবার দাম বেড়ে যাচ্ছে। এসবের প্রভাবে সবচেয়ে বেশি কষ্টে আছে স্বল্প ও সীমিত আয়ের মানুষ। রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়াতে হুন্ডি বন্ধ করা দরকার। রেমিট্যান্স পাঠানোর খরচ কমাতে হবে ও সহজ করতে হবে; বৈদেশিক মুদ্রার অপচয় বন্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া দরকার; কৃষিতে গুরুত্ব দিয়ে খাদ্যপণ্যে আমদানিনির্ভরতা কাটানোর পদক্ষেপ নিতে হবে। দেশের ব্যাংক খাতে নানা ধরনের সংকট বিরাজ করছে, যার নিরসনে এ খাতে সুশাসন প্রতিষ্ঠা করা জরুরি। সবচেয়ে বড় কথা, সর্বক্ষেত্রে দুর্নীতি বন্ধ করা না গেলে আমাদের অর্জনগুলো টেকসই হবে না।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments