আগুন প্রতিরোধী ‘অ্যালুমিনিয়াম কম্বল’ দিয়ে মুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে গাছটিকে। তাও আবার যেনতেন গাছ নয়, বিশ্বের সবচেয়ে বড় গাছ। ডাকনাম জেনারেল শারমেন। আয়তন ১ হাজার ৪৮৭ ঘনমিটার, উচ্চতায় ৮৪ মিটার। যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ায় সিকুইয়া ন্যাশনাল পার্কের ওই জেনারেল শারমেনসহ অন্য বড় গাছগুলোকে দাবানলের লেলিহান শিখা থেকে বাঁচানোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে পার্ক কর্তৃপক্ষ। বন জাদুঘর নামে পরিচিত পার্কটিতে দুই হাজারেরও বেশি সিকুইয়া গাছ রয়েছে। দি গার্ডিয়ান।

ক্যালিফোর্নিয়ার দুর্গম এলাকা সিয়েরা নেভাদায় দাবানলের আগুনে পুড়ছে প্রকৃতিরক্ষার হাতিয়ার হিসেবে চিহ্নিত গাছগুলো। ওই দাবানলের আগুন এগিয়ে আসছে সিকুইয়া ন্যাশনাল পার্কের দিকেই। আর সেগুলোকেই বাঁচাতে মরিয়া দমকল বাহিনীর কর্মীরা। আগুন কাছাকাছি আসার আগেই বড় বড় গাছগুলোকে অ্যালুমিনিয়ামের পাতলা শিট দিয়ে মুড়িয়ে দিচ্ছেন তারা।

দমকল বাহিনীর মুখপাত্র রেবেকা পেটারসন বলেন, ‘এই পার্ক হচ্ছে জেনারেল শেরম্যানসহ অন্যান্য গাছের জন্য একটা বনজাদুঘরের মতোই। এ কারণে এর বড় আকারের গাছ এবং ভবনগুলোকে আগুনের শিখা থেকে বাঁচানোর চেষ্টা করছি আমরা। কারণ বৃহস্পতিবারের মধ্যেই আগুন এখানে পৌঁছানোর কথা ছিল।’ অ্যালুমিনিয়াম অল্প সময়ের জন্য তীব্র তাপ সহ্য করতে পারে। ফেডারেল কর্মকর্তারা বলছেন, সংবেদনশীল কাঠামোগুলোকে আগুনের হাত থেকে রক্ষা করার জন্য তারা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পশ্চিমাঞ্চলে বেশ কয়েক বছর ধরে এ উপাদান ব্যবহার করে আসছে। গত বছর এই অঞ্চলে দাবানলে হাজার হাজার সিকুইয়া মারা গিয়েছিল, যেগুলোর মধ্যে ছিল হাজার হাজার বছরের পুরনো গাছ। ন্যাশনাল পার্ক সার্ভিসের মতে, গত বছর অগ্নিকাণ্ডে মারা গিয়েছিল সাড়ে ৭ হাজার থেকে ১০ হাজার ৬শর বেশি সিকুইয়া। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ঐতিহাসিক খরা এবং তাপ তরঙ্গে আমেরিকার পশ্চিমাঞ্চল ঘন ঘন দাবানলের শিকার হয়েছে।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, জলবায়ু পরিবর্তন গত ৩০ বছরে এই অঞ্চলটিকে অনেক বেশি উষ্ণ এবং শুষ্ক করে তুলেছে। আগামীতে দাবানলের কারণে এ অঞ্চলের প্রকৃতি ধ্বংসের হুমকিতে রয়েছে।

English