Tuesday, February 27, 2024
spot_img
Homeআন্তর্জাতিকইউক্রেন সঙ্কটে ভারসাম্য রাখতে হিমশিম খাচ্ছে ভারত

ইউক্রেন সঙ্কটে ভারসাম্য রাখতে হিমশিম খাচ্ছে ভারত

ইউক্রেন সঙ্কট নিয়ে ভারসাম্যের কূটনীতি ধরে রাখার চেষ্টা করছে ভারত। ইউক্রেনের দুই অঞ্চলকে স্বাধীন রাষ্ট্র ঘোষণা করে সেই অঞ্চলে রুশ সেনা পাঠানোর সিদ্ধান্তের মঙ্গলবার কড়া সমালোচনা করেছে পশ্চিমী দুনিয়া। কিন্তু রাশিয়ার বিরুদ্ধে এ দিনও মুখ খোলেনি ভারত। তবে কত দিন দিল্লি এই ভারসাম্য বজায় রাখতে পারবে তা নিয়ে সন্দিহান কূটনীতিকেরা।

এ দিন রাতে ২৪২ জন যাত্রীকে নিয়ে ইউক্রেন থেকে ফিরেছে এয়ার ইন্ডিয়ার বিশেষ উড়ান ‘এআই১৯৪৭’। ভারতীয়দের ইউক্রেন থেকে ফেরাতে তিনটি বিশেষ বিমান চালানোর কথা ঘোষণা করেছে এয়ার ইন্ডিয়া। এটি সেগুলির মধ্যে প্রথম। পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মীনাক্ষী লেখির কথায়, ‘‘আতঙ্কের কোনও কারণ নেই। ইউক্রেনে বসবাসকারী ভারতীয়রা দূতাবাসের সঙ্গে যোগাযোগ রাখুন।’’ ইউক্রেনে থাকা ভারতীয় মেডিক্যাল শিক্ষার্থীরা যাতে অনলাইনে পড়াশোনা চালাতে পারেন তা নিশ্চিত করতে ভারতীয় দূতাবাস সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়গুলির সঙ্গে কথা বলার আশ্বাস দিয়েছে।

মঙ্গলবার ইউক্রেনের ডোনেৎস্ক ও লুহানস্ক অঞ্চলকে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সরকার। ওই দুই এলাকায় প্রবেশ করতে রুশ সেনাকে নির্দেশও দেওয়া হয়েছে। এর পরেই জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের জরুরি বৈঠক ডাকা হয়। তাতে আমেরিকা, রাশিয়া, ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্য দেশগুলি ও কেনিয়া এই সিদ্ধান্তকে ইউক্রেনের সার্বভৌমত্বের উপরে হামলার তকমা দিয়েছে। ওই দেশগুলি জানিয়ে দিয়েছে, রাশিয়ার বিরুদ্ধে আর্থিক নিষেধাজ্ঞা জারি ও অন্য পদক্ষেপ করবে তারা।

কিন্তু এই দেশগুলির সঙ্গে যোগ না দিয়ে ফের আলোচনার মাধ্যমে ইউক্রেন সঙ্কট মেটানোর উপরে জোর দিয়েছে ভারত। নিরাপত্তা পরিষদে ভারতের স্থায়ী প্রতিনিধি টি এস তিরুমূর্তি বলেন, ‘‘পরিস্থিতি উদ্বেগজনক। এখনই সব দেশের বৈধ স্বার্থের কথা বিবেচনা করে দীর্ঘস্থায়ী শান্তি ও সুস্থিতির লক্ষ্যে পদক্ষেপ করা উচিত।’’ এই প্রসঙ্গে ২০১৪-১৫ সালের মিনস্ক চুক্তির কথা উল্লেখ করেছেন তিরুমূর্তি। ইউক্রেন সংক্রান্ত সেই চুক্তি এখনও কার্যকর হয়নি।

তিরুমূর্তির বক্তব্য, ‘‘রাশিয়া, ইউক্রেন ও ইউরোপের ওএসসিই গোষ্ঠীর দেশগুলিকে নিয়ে গঠিত গোষ্ঠীর আলোচনাকে স্বাগত জানাচ্ছে ভারত। সেই সঙ্গে রাশিয়া, ইউক্রেন, জার্মানি ও ফ্রান্সের মধ্যে নরম্যান্ডি পর্যায়ের আলোচনারও পক্ষে ভারত। গঠনমূলক কূটনীতিই এখন একমাত্র পথ।’’ প্রায়ই একই সুরে প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিংহও বলেন, ‘‘ভারত বিশ্বশান্তির পক্ষে। আমেরিকার প্রেসিডেন্ট রুশ প্রেসিডেন্টের সঙ্গে কথা বলতে রাজি হয়েছেন বলে আমরা জানতে পেরেছি। আমরা নিশ্চিত আলোচনা হলে সমস্যা সমাধানের কোনও না কোনও পথ খুঁজে পাওয়া যাবে।’’

কিন্তু কূটনৈতিক সূত্রে খবর, আমেরিকা-সহ পশ্চিমী দুনিয়া ও কোয়াড অক্ষের সদস্য দেশগুলি যখন রাশিয়ার কড়া সমালোচনা করছে তখন ভারতের এই ভারসাম্যের কূটনীতি খুব একটা ভাল চোখে দেখছে না অনেক দেশই। তাদের মতে, রাশিয়ার বিরুদ্ধে সুর না চড়িয়ে দিল্লি কার্যত মস্কোকে সমর্থনই করছে। ফলে এই ভারসাম্য বজায় রাখা কঠিন হতে পারে বলে মনে করছেন কূটনীতিকদের একাংশ। ‍সূত্র: টাইমস নাউ।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments