Saturday, July 20, 2024
spot_img
Homeকমিউনিটি সংবাদ USAইউক্রেনে রুশ অভিযান হবে ‘ভয়ংকর’, তবে যুদ্ধ অনিবার্য নয়

ইউক্রেনে রুশ অভিযান হবে ‘ভয়ংকর’, তবে যুদ্ধ অনিবার্য নয়

ইউক্রেনে রাশিয়ার অভিযান হতে যাচ্ছে ‘ভয়ংকর’ এবং এতে হতাহত হবে বহু মানুষ। এমন সাবধান বার্তাই দিয়েছেন মার্কিন শীর্ষ জেনারেল মার্ক মিলি। তিনি বলেন, ইউক্রেন সীমান্তে রাশিয়া যে সেনা মোতায়েন করেছে তা স্নায়ু যুদ্ধের পর সর্বোচ্চ। যদিও মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী লয়েড অস্টিন বলেছেন, এখনো কূটনীতির মাধ্যমে যুদ্ধ এড়িয়ে যাওয়া সম্ভব। এ খবর দিয়েছে বিবিসি।
খবরে বলা হয়, রাশিয়া প্রথম থেকেই ইউক্রেনে যে কোনো ধরনের আগ্রাসন চালানোর পরিকল্পনার কথা অস্বীকার করে আসছে। তবে শুক্রবার জেনারেল মিলি পেন্টাগনে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, রাশিয়া ইউক্রেন সীমান্তে যে পরিমাণ সেনা মোতায়েন করেছে তাতে কোনো ধরনের আগ্রাসন হলে তার পরিণাম হবে ভয়াবহ। এতে প্রাণ হারাবেন অসংখ্য মানুষ। বিশেষ করে শহুরে এলাকাগুলোতে যুদ্ধ হবে মর্মান্তিক।
এদিকে মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী লয়েড অস্টিন বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র ইউক্রেনের নিরাপত্তা নিশ্চিতে বদ্ধপরিকর। প্রয়োজনে সেখানে আরও অস্ত্র পাঠানো হবে। তবে তিনি আরও বলেন, যুদ্ধ এখনো অনিবার্য নয়। এখনো কূটনীতির জন্য সময় ও সুযোগ আছে। যুদ্ধ দিয়েই এই সংকট সমাধান করতে হবে এমন কোনো কারণ নেই। রুশ প্রেসিডেন্ট চাইলেই সেনা সরিয়ে নিতে পারেন।
এর আগে শুক্রবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেন, তিনি পূর্ব ইউরোপে আরও সেনা পাঠাবেন। এরমধ্য দিয়ে ওই অঞ্চলে ন্যাটোর অবস্থান আরও শক্তিশালী করা হবে। তবে কোন দেশে তাদের মোতায়েন করা হবে তা এখনো জানা যায়নি। বর্তমানে ৮ হাজার ৫০০ সেনা সতর্ক অবস্থায় রয়েছে। যে কোনো সময় তাদের যুদ্ধে পাঠানো সম্ভব হবে। তবে এর মধ্য দিয়ে রাশিয়ার প্রধান দাবিটি মানতে অস্বীকৃতি জানালো যুক্তরাষ্ট্র। রাশিয়া প্রথম থেকেই বলে আসছে পূর্ব ইউরোপ থেকে ন্যাটোর সামরিক কার্যক্রম প্রত্যাহার করতে হবে। একইসঙ্গে ইউক্রেনকে কখনো ন্যাটোর সদস্য করা যাবে না। তবে যুক্তরাষ্ট্র রাশিয়ার এই দাবি মেনে নিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে। রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনও একই কথাই বলেন। তিনি বলেন, পশ্চিমা দেশগুলো রাশিয়ার নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বেগকে পাত্তা দিচ্ছে না। তবে রুশ দাবির প্রেক্ষিতে যুক্তরাষ্ট্রের তরফ থেকে পাঠানো চিঠি বিশ্লেষণ করে পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়া হবে বলেও জানান পুতিন।
এদিকে পশ্চিমা দেশগুলো ইউক্রেনের নিরাপত্তা নিয়ে টানা উদ্বেগ জানিয়ে আসলেও ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট নিজেই একে বাড়াবাড়ি বলছেন। প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি রাজধানী কিয়েভে সাংবাদিকদের বলেন, সীমান্তে রুশ সেনা মোতায়েন নিয়ে উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই। আমি গত বছরের তুলনায় এ বছর আলাদা করে কোনো হুমকি দেখি না। মূলত দেশের মধ্যে অস্থিতিশীলতা তৈরি হলে তাই হবে ইউক্রেনের জন্য সবথেকে বড় হুমকি।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments