Sunday, June 16, 2024
spot_img
Homeধর্মআল্লাহ যেভাবে বান্দার সঙ্গে থাকেন

আল্লাহ যেভাবে বান্দার সঙ্গে থাকেন

আহলুস সুন্নাহ ওয়াল জামাতের বিশ্বাস হলো মহান আল্লাহ আরশে সমাসীন হয়েও আপন কুদরতে বান্দার সঙ্গে থাকেন। বান্দার সঙ্গে থাকার বিষয়টি প্রকৃতার্থে, রূপকার্থে নয়। আবার আল্লাহ বান্দার সঙ্গে থাকার অর্থ বান্দার মধ্যে বিলীন হয়ে যাওয়া নয়। তিনি স্পষ্টতই সব সৃষ্টি থেকেই পৃথক ও ভিন্ন।

কোরআন ও সুন্নাহ দ্বারা আল্লাহর সঙ্গে থাকার বিষয়টি প্রমাণিত। পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘তোমরা যেখানেই থাকো তিনি তোমাদের সঙ্গে আছেন। ’ (সুরা হাদিদ, আয়াত : ৪)

অন্য আয়াতে ইরশাদ হয়েছে, ‘তিন ব্যক্তির মধ্যে এমন কোনো গোপন পরামর্শ হয় না, যাতে চতুর্থজন হিসেবে তিনি উপস্থিত থাকেন না এবং পাঁচ ব্যক্তির মধ্যেও হয় না, যাতে ষষ্ঠজন হিসেবে তিনি উপস্থিত থাকেন না। তাঁরা এর চেয়ে কম হোক বা বেশি হোক তিনি তাঁদের সঙ্গেই আছেন তারা যেখানেই থাকুক না কেন। ’ (সুরা মুজাদালাহ, আয়াত : ৭)

ইমাম ইবনে জারির তাবারি (রহ.) বলেন, ‘আল্লাহ সর্বখানে বান্দার সঙ্গে থাকেন’-এর ব্যাখ্যা হলো আল্লাহ সাত আসমানের ঊর্ধ্বে আরশে সমাসীন থেকেই তাদের যাবতীয় কর্মকাণ্ড, ক্রিয়াকলাপ ও কর্মকাণ্ড সম্পর্কে জানেন। তারা যেখানেই থাকুক তাদের প্রত্যক্ষ করেন। (তাফসিরে তাবারি : ২২/৩৮৭)

কোরআনে আল্লাহর বিশেষ সাহায্য ও সহযোগিতাকেও ‘সঙ্গে থাকা’ বাক্য দ্বারা ব্যক্ত হয়েছে। ইরশাদ হয়েছে, ‘আল্লাহ তাদের সঙ্গেই আছেন যারা তাকওয়া অবলম্বন করে এবং যারা সৎকর্মপরায়ণ। ’ (সুরা নাহল, আয়াত : ১২৮

হিজরতের সময় রাসুলুল্লাহ (সা.) আবু বকর (রা.)-কে আশ্বস্ত করে বলেন, ‘ভয় পেয়ো না। আল্লাহ আমাদের সঙ্গে আছেন। ’ (সুরা তাওবা, আয়াত : ৪০)

একাধিক হাদিস দ্বারা আল্লাহর সঙ্গে থাকার বিষয়টি প্রমাণিত। যেমন রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘যখন তোমাদের কেউ নামাজ আদায় করে সে যেন তার সামনের দিকে থুথু না ফেলে। কেননা সে যখন নামাজ আদায় করে, তখন তার সামনের দিকে আল্লাহ তাআলা থাকেন। ’ (সহিহ বুখারি, হাদিস : ৪০৬)

হাদিসে কুদসিতে আল্লাহ বলেন, ‘আমি আমার প্রতি বান্দার ধারণা অনুসারে তার সঙ্গে আচরণ করি। সে যখন আমাকে স্মরণ করে আমি তার সঙ্গেই থাকি। ’ (সহিহ বুখারি, হাদিস : ৭৪০৫)

RELATED ARTICLES
- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments