Wednesday, April 17, 2024
spot_img
Homeকমিউনিটি সংবাদ USAআদানিদের লড়াই গড়াতে চলেছে মার্কিন আদালতে

আদানিদের লড়াই গড়াতে চলেছে মার্কিন আদালতে

মার্কিন শর্ট সেলার হিন্ডেনবার্গ রিসার্চের প্রতিবেদনে ভিত নড়ে গেছে ভারতের সবচেয়ে বড় করপোরেট আদানি গোষ্ঠীর। বাজার অর্থনীতি থেকে বেরিয়ে প্রশ্ন এখন রাজনৈতিক। দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত আদানি গোষ্ঠীর কর্ণধার গৌতম আদানি এবার সেই হিন্ডেনবার্গের বিরুদ্ধে লড়াইকে আইনের আঙিনায় নিয়ে আসতে চলেছেন। সে জন্য বিশ্বের সবচেয়ে দামি আইনি পরামর্শদাতা সংস্থাগুলোর একটি নিউ ইয়র্কের ওয়াচটেল লিপটন রোজেন অ্যান্ড কাটজকে নিয়োগ করা হয়েছে বলে খবর প্রকাশ করেছে ফিন্যান্সিয়াল টাইমস।

প্রতিবেদনে লেখা হয়েছে, ‘সাম্প্রতিক কালে আদানি গোষ্ঠী নিউ ইয়র্কের ওয়াচটেল লিপটন রোজেন অ্যান্ড কাটজের অভিজ্ঞ আইনজীবীদের নিয়োগ করেছে। জানুয়ারি মাসে হিন্ডেনবার্গের একটি প্রতিবেদনে দাবি করা হয়, আদানি গোষ্ঠীর সংস্থাগুলো হিসেবে গরমিল এবং বাজার নিয়ন্ত্রণের কারসাজি করে লাভের অঙ্ক বাড়িয়েছে। তার বিরুদ্ধে এই সংস্থা আদানিদের আইনি পরামর্শ দেবে।’ অন্তত চারটি সূত্রকে উদ্ধৃত করে এ খবর জানিয়েছে সংবাদপত্রটি।

টুইটার কিনবেন ইলন মাস্ক। কিন্তু প্রতিশ্রুতি দিয়েও বিভিন্ন কারণে চুক্তি সই পিছিয়ে যাচ্ছিল বারবার। মাস্ককে আইনি ‘সবক’ শেখাতে সেই সময় টুইটার নিয়োগ করেছিল নিউ ইয়র্কের আইনি পরামর্শদাতা সংস্থা ওয়াচটেলকে। আবার শেয়ারহোল্ডারদের সঙ্গে বিবাদ যখন আদালতের চৌহদ্দিতে পৌঁছয় তখন টেসলা এবং মাস্কের ‘মসিহা’ হয়ে উঠেছিল এই ওয়াচটেলই।

এবার আদানি গোষ্ঠীর হয়ে মার্কিন আদালতে হিন্ডেনবার্গের উদ্দেশ্য নিয়ে প্রশ্ন করবে এই আইনি পরামর্শদাতা সংস্থা। সংস্থাটি কেবল নামজাদাই নয়, তাদের নিয়োগ করতেও কম টাকা খরচ হয় না। জানা যায়, যুক্তরাষ্ট্রে ওয়াচটেলের পরামর্শই সবচেয়ে দামি।

গত ২৫ জানুয়ারি হিন্ডেনবার্গের রিপোর্ট প্রকাশিত হওয়ার পর থেকেই আদানি গোষ্ঠীর শেয়ারের দাম লাগাতার পড়তে থাকে। এতে ভিত নড়ে যায় মোদিঘনিষ্ঠ গৌতম আদানির সংস্থার। এ বার তার বিরুদ্ধেই জোর কদমে আদালতে নামার তোড়জোড় শুরু করে দিল আদানিরা। হিন্ডেনবার্গ জানিয়েছিল, তাদের প্রতিবেদনকে অন্যায্য এবং মিথ্যে বলে মনে করলে আদানি গোষ্ঠী যেন তাদের যুক্তরাষ্ট্রের আদালতে চ্যালেঞ্জ করে। তাতে নিজেদের দাবির পক্ষে এসংক্রান্ত আরো তথ্য আদালতকে সরবরাহ করতে পারবে হিন্ডেনবার্গ রিসার্চ। 

সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা

RELATED ARTICLES
- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments