Wednesday, April 17, 2024
spot_img
Homeবিচিত্রঅ্যান্টার্কটিক সমুদ্রের বরফ সর্বনিম্ন স্তরে পৌঁছেছে, বড়সড় বিপদের আশঙ্কা

অ্যান্টার্কটিক সমুদ্রের বরফ সর্বনিম্ন স্তরে পৌঁছেছে, বড়সড় বিপদের আশঙ্কা

৪৪ বছর ধরে, বিজ্ঞানীরা স্যাটেলাইটের মাধ্যমে নজর রেখে আসছেন যে, অ্যান্টার্কটিকার ১৮ হাজার কিলোমিটার উপকূলরেখার চারপাশে সমুদ্রে কতটা বরফ ভাসছে। মহাদেশের তীরের পানি প্রতি বছর একটি বিশাল পরিবর্তনের সাক্ষী হয়, প্রতি সেপ্টেম্বরে সমুদ্রের বরফ প্রতি বর্গ কিলোমিটারে ১৮ মিটার উঠে যায় এবং ফেব্রুয়ারির মধ্যে মাত্র ২ মিটারে নেমে আসে।

কিন্তু স্যাটেলাইট পর্যবেক্ষণের এ চার দশক জুড়ে, গত সপ্তাহের তুলনায় মহাদেশের চারপাশে কখনও এত কম বরফ দেখা যায়নি। ‘জানুয়ারির শেষের দিকে আমরা বলতে পারতাম এটা সময়ের ব্যাপার মাত্র। এটি এমনকি খুব একটা উদ্বেগের বিষয়ও ছিল না,’ অস্ট্রেলিয়ান অ্যান্টার্কটিক প্রোগ্রামের সাথে কাজ করা তাসমানিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যান্টার্কটিক সমুদ্রের বরফ বিশেষজ্ঞ ডঃ উইল হবস বলেছেন, ‘আমরা সর্বত্র কম বরফ দেখছি। এটি একটি চক্রাকার ঘটনা।’

দক্ষিণ গোলার্ধে ২০২২ সালের গ্রীষ্মে, ২৫ ফেব্রুয়ারি সমুদ্রের বরফের পরিমাণ বরফ প্রতি বর্গ কিলোমিটারে ১.৯২ মিটারে নেমে আসে – এটি ১৯৭৯ সালে শুরু হওয়া স্যাটেলাইট পর্যবেক্ষণের উপর ভিত্তি করে সর্বকালের সর্বনিম্ন। তবে এ বছরের ১২ ফেব্রুয়ারি এ রেকর্ড ইতিমধ্যেই ভেঙে গেছে। ১ লাখ ৩৬ হাজার কিলোমিটার এলাকায় বরফ গলতে গলতে গলতে ১.৭৯ মিটারের নতুন রেকর্ড সর্বনিম্নে পৌঁছেছে – এটি তাসমানিয়ার আয়তনের দ্বিগুণ।

ন্যাশনাল স্নো অ্যান্ড আইস ডেটা সেন্টার অনুসারে, অ্যান্টার্কটিকায় ১৯ দশমিক ১ লাখ বর্গকিলোমিটার এলাকার বরফ গলে গিয়েছে। এটি একটি নতুন রেকর্ড। বিজ্ঞানীদের মতে, অ্যান্টার্কটিকায় বরফ গলে যাওয়ার এই ঘটনাটি খুবই অদ্ভুত। এমন ঘটনায় তারা উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। তবে বিজ্ঞানীরা শুধুমাত্র জলবায়ু পরিবর্তনকেই দায়ী করছেন না। গত ৪০ বছরের তথ্যের দিকে তাকালে দেখা যায়, ২০২২-এ গ্রীষ্মের মরসুমে যে হারে দ্রুত বরফ গলে গিয়েছে, তার কারণ বৈশ্বিক উষ্ণায়ন বৃদ্ধি। অ্যান্টার্কটিকায় প্রতি দশকে বরফ ১২-১৩ শতাংশ কমছে। যা অ্যান্টার্কটিকায় আগে কখনও ঘটেনি।

বিজ্ঞানীরা জানাচ্ছেন, গরম বায়ুর কারণে দ্রুত বরফ গলে যাচ্ছে। চলতি বছর গরম বায়ুর তাপমাত্রা গড়ের চেয়ে ১ দশমিক ৫ ডিগ্রি বেশি। অ্যান্টার্কটিকা পৃথিবীর শীতলতম অঞ্চল। এটি বিশ্বের পঞ্চম বৃহত্তম মহাদেশ। ইউরোপের চেয়ে ৪০ শতাংশ বড়। এখানে পৃথিবীর ৭০ শতাংশ মিষ্টি পানি রয়েছে। তবে সেই মিষ্টি পানির পুরোটাই বরফ আকারে বিদ্যমান রয়েছে। অ্যান্টার্কটিকার সামুদ্রিক বরফ গলে যাওয়াকে একটি জটিল ঘটনা বলে মনে করছেন বিজ্ঞানীরা।

অ্যান্টার্কটিকা ১ কোটি ৪২ লাখ বর্গ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে বিস্তৃত। বিজ্ঞানীরা মনে করেন, অ্যান্টার্কটিকা গলে গেলে সমুদ্রের পানিস্তর ২০০ ফুট বাড়বে। ন্যাশনাল জিওগ্রাফিকের একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, অ্যান্টার্কটিকা ৪ কোটি বছর ধরে বরফের চাদরে ঢাকা রয়েছে। প্রায় ১৮ হাজার বছর আগে পৃথিবীর এক-তৃতীয়াংশ বরফে ঢাকা ছিল, কিন্তু এখন এর মাত্র দশভাগের এক অংশ বরফ। পৃথিবীর উষ্ণতা দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে। যার ফলে বরফ গলে যাচ্ছে এবং এর ফলে হিমবাহগুলিও দ্রুত গলতে শুরু করেছে। এ নিয়ে সারা বিশ্বের বিজ্ঞানীরা আতঙ্কিত।

অ্যান্টার্কটিকার এ বরফের চাদরে মিষ্টি পানি থাকে, যা সমুদ্রের লবণাক্ততা কমায় এবং এর কারণে সমুদ্রে বসবাসকারী প্রাণীরা মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। জাতিসংঘের ধারণা, আগামী শতাব্দীর মধ্যে সমুদ্রের বরফ ২৫ শতাংশ পর্যন্ত কমে যেতে পারে। যার কারণে অ্যান্টার্কটিকায় বসবাসকারী প্রাণীদেরও খাদ্য ও পানীয়ের সমস্যায় পড়তে হতে পারে।

বহু বছর ধরে অ্যান্টার্কটিকা আপাতদৃষ্টিতে কিছু জলবায়ু মডেলকে বিভ্রান্ত করে তুলেছিল কারণ ২০১৬ সালে একটি দুর্ঘটনা পর্যন্ত সমুদ্রের বরফ – গড়ে – সামান্য বৃদ্ধি পেয়েছিল। মোনাশ ইউনিভার্সিটির জলবায়ু বিজ্ঞানী ডঃ আরিয়ান পুরিচ দেখেছেন কেন সমুদ্রের বরফ প্রত্যাশিত আচরণ করে না। তিনি বলেছিলেন যে, এটি সম্ভবত পরিবর্তনশীল বাতাসের কারণে ঘটেছে এবং বিপরীতে, স্থল থেকে গলে যাওয়া পানি সমুদ্রে প্রবেশ করেছে যা বরফ গঠনের জন্য সহজ করে তুলেছে। ‘সমস্ত মডেলগুলি প্রজেক্ট করে যে, জলবায়ু উষ্ণ হওয়ার সাথে সাথে আমরা (অ্যান্টার্কটিক সামুদ্রিক বরফ) হ্রাস দেখতে পাব,’ তিনি বলেন, ‘এতে ব্যাপক ঐকমত্য রয়েছে। তাই এই নিম্ন সমুদ্রের বরফ জলবায়ু মডেলগুলি যা দেখায় তার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ।’

অ্যান্টার্কটিক বিজ্ঞানীরা এখন কী ঘটছে তা খুঁজে বের করার জন্য চেষ্টা করছেন। সামুদ্রিক বরফের ফোঁটা এবং বরফের রেকর্ড গলন কি একটি মহাদেশের প্রাকৃতিক ঘটনা নাকি এ রেকর্ডগুলো হিমায়িত মহাদেশে জলবায়ু সঙ্কটের আরেকটি স্পষ্ট লক্ষণ? ‘অ্যান্টার্কটিকাকে দূরবর্তী মনে হতে পারে কিন্তু চারপাশের পরিবর্তনগুলি বিশ্বব্যাপী জলবায়ুকে প্রভাবিত করতে পারে এবং বরফের গলিত শীটগুলি সারা বিশ্বের উপকূলীয় সম্প্রদায়গুলিকে প্রভাবিত করে,’ বলেছেন পুরিচ, ‘অ্যান্টার্কটিকায় যা ঘটছে তা নিয়ে সবারই উদ্বিগ্ন হওয়া উচিত।’ সূত্র: দ্য গার্ডিয়ান।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments