গুয়াঞ্জুর বিশ্ব সাঁতার চ্যাম্পিয়নশিপে ৫০ মিটার ফ্রিস্টাইলে নিজের সেরা টাইমিং ছাপিয়ে যেতে পারেননি তিনি।  তবে ওই নৈপুণ্যের সুবাদেই এক  সুখবর পেলেন জুনাইনা আহমেদ। ওই আসরের টাইমিং বিবেচনায় টোকিও অলিম্পিকে ওয়াইল্ড কার্ড পেয়েছেন ইংল্যান্ড প্রবাসী এই বাংলাদেশি সাঁতারু। আসন্ন অলিম্পিকের সাঁতারে আরো একটি ওয়াইল্ড কার্ড পেতে পারে বাংলাদেশ। ফ্রান্সে প্রশিক্ষণরত সাঁতারু আরিফুল ইসলামের এ ওয়াইল্ড কার্ড পাওয়ার সম্ভাবনা বেশি।
২০১৯ সালের ওই বিশ্ব সাঁতার চ্যাম্পিয়নশিপে মেয়েদের ৫০ মিটার ফ্রিস্টাইলে ৩০ দশমিক ৯৬ সেকেন্ড সময় নিয়ে ১০০ প্রতিযোগীর মধ্যে ৮৬তম হয়েছিলেন জুনাইনা। ওই বছরই জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপে এই ইভেন্টে সাঁতার শেষ করেছিলেন ২৯ দশমিক ৯৯ সেকেন্ড সময় নিয়ে। বাংলাদেশ সাঁতার ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক এমবি সাইফ জানান, গুয়াঞ্জুর ওই টাইমিংয়ের কারণে জুনাইনা বিবেচিত হয়েছেন টোকিও অলিম্পিকের ওয়াইল্ড কার্ডের জন্য। তিনি বলেন, ‘গুয়াঞ্জুর বিশ্ব সাঁতার চ্যাম্পিয়নশিপে জুনাইনা যে টাইমিং করেছিল, ওটাই বিবেচনায় নিয়েছে অলিম্পিক কর্তৃপক্ষ।তারা ৫০ মিটার ফ্রিস্টাইলে জুনাইনাকে ওয়াইল্ড কার্ড দিয়েছে এবং বিষয়টি অলিম্পিকের (বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েন) মাধ্যমে আমাদের জানিয়েছে। সাঁতার থেকে আমরা আরও একটি ওয়াইল্ড কার্ড পাবো। ছেলেদের ৫০ মিটার ফ্রিস্টাইলে জুয়েল আহমেদ ও আরিফুল ইসলাম দুজনের মধ্যে একজনের নাম পাঠানোর কথা বলেছে তারা। দুই একদিনের মধ্যে এটাও চূড়ান্ত হয়ে যাবে। আরিফুল যেহেতু স্কলারশিপ নিয়ে ফ্রান্সে অনুশীলনের মধ্যে আছে, খুব সম্ভবত আমরা তাকেই বেছে নিবো।’ গুয়াঞ্জুতে ৫০ মিটার ফ্রিস্টাইলের হিটে ২৪ দশমিক ৯২ সেকেন্ড সময় নিয়ে ১৩০ জনের মধ্যে ৯২তম হয়েছিলেন আরিফুল। জাপানের রাজধানী টোকিওতে ২০২০ সালে হওয়ার কথা ছিল অলিম্পিক। কিন্তু বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে আসরটি পিছিয়ে যায়। বিশ্বের সবচেয়ে বড় এই ক্রীড়াযজ্ঞ আগামী ২৩শে জুলাই শুরু হয়ে ৮ আগাস্ট শেষ হওয়ার কথা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

English