Wednesday, May 22, 2024
spot_img
Homeধর্মঅর্থব্যয়ে মধ্যপন্থা অবলম্বনে স্বস্তিদায়ক জীবন

অর্থব্যয়ে মধ্যপন্থা অবলম্বনে স্বস্তিদায়ক জীবন

ইসলাম একটি ভারসাম্যপূর্ণ সর্বজনীন জীবনবিধান। মধ্যপন্থা এর অন্যতম বৈশিষ্ট্য। তাই ইসলাম কৃপণতাকে যেমন নিরুৎসাহ করে, তেমনি অপচয় ও অপব্যয়েরও নিন্দা করা হয়েছে। বিশেষত সংকটকালে অপচয় আরো বেশি ক্ষতির কারণ হয়ে ওঠে।

তখন অপচয় রোধ করে এবং মধ্যপন্থী হয়ে সংকট মোকাবেলাই বুদ্ধিমানের কাজ। বর্তমানে সারা বিশ্বেই জ্বালানিসংকট প্রকট হয়ে উঠেছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে জাতীয় পর্যায়ে বিদ্যুতের অপচয় রোধ ও তার সংযত ব্যবহারের আহ্বান জানানো হয়েছে, যা অবশ্যই একটি প্রশংসনীয় কাজ। কেননা মহান আল্লাহ বলেছেন, ‘আর যখন তারা ব্যয় করে তখন অপচয়ও করে না আবার কার্পণ্যও করে না। বরং উভয়ের মাঝামাঝি অবস্থান করে। ’ (সুরা : ফুরকান, আয়াত : ৬৭)

ব্যক্তি, পরিবার, সমাজ থেকে রাষ্ট্র— সব জায়গায় মিতব্যয়ী হওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। খাওয়াদাওয়া, পোশাক-পরিচ্ছদ, বিয়েশাদিসহ জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে অপব্যয় থেকে বিরত থাকতে বলা হয়েছে। কোরআনে অপব্যয়কারীকে শয়তানের ভাই আখ্যা দিয়ে বলা হয়েছে, ‘তোমরা অপচয় কোরো না। নিশ্চয়ই অপচয়কারীরা শয়তানের ভাই। (সুরা : বনি ইসরাঈল, আয়াত : ২৬)

অপচয়কারী দুনিয়ায় যেমন অপমানিত হবে তেমনি আখিরাতেও লজ্জিত হবে। মহান আল্লাহ বলেন, ‘আর তুমি তোমার হাত তোমার গ্রীবায় আবদ্ধ করে রেখো না (অর্থাৎ কৃপণ হয়ো না) এবং তাকে একেবারে খুলেও দিয়ো না (অর্থাৎ অপচয় করো না), তাহলে তুমি নিন্দিত ও নিঃস্ব হয়ে পড়বে। ’ (সুরা : বনি ইসরাঈল, আয়াত : ২৯)

মহানবী (সা.) জীবনের সর্বক্ষেত্রে অপব্যয় করা থেকে নিষেধ করেছেন। তিনি বলেছেন, ‘তোমরা পানাহার করো। দান-সদকা করো। পোশাক পরিধান করো। তবে অহংকার ও অপচয় করে নয়। ’ (মুসনাদে আহমাদ, হাদিস : ৬৬৯৫)

অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় হলো, বিয়েশাদি ও অন্যান্য অনুষ্ঠানে আমরা সীমাহীন অপচয় ও অপব্যয় করি। সাজসজ্জা ও খাবার গ্রহণে অনেক বেশি অপচয় করি। এ জন্য কিয়ামতের দিন কঠিন জবাবদিহি করতে হবে। মহান আল্লাহ বলেন, ‘অতঃপর সেদিন তোমাদেরকে আল্লাহ প্রদত্ত নিয়ামতের ব্যবহার সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হবে। ’

(সুরা : তাকাসুর, আয়াত : ৮)

সর্বোপরি আল্লাহর কাছে আত্মসংযমের দোয়া করতে হবে। কোরআনে ইরাশাদ হয়েছে, ‘হে আমাদের প্রতিপালক! আপনি আমাদের পাপ ক্ষমা করুন, সব ক্ষেত্রে অপচয় থেকে রক্ষা করুন এবং অবিশ্বাসী সম্প্রদায়ের ওপর আমাদের বিজয় দান করুন। ’ (সুরা : আলে ইমরান, আয়াত : ১৪৭)

লেখক : সিনিয়র মুহাদ্দিস, জামিয়া ইসলামিয়া বাইতুল করীম, হালিশহর, চট্টগ্রাম

RELATED ARTICLES
- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments